নগরে বকপক্ষির আবাস!

Print Friendly

ঢাকা; ১৭ জুন:  ঢাকা শহরে রাস্তার ধারে গাছে অনেক পাখির বাসা দেখা যায়। এখনো ঢাকা শহরের প্রাণ কেন্দ্রে অনেক পাখি বাসা বুনে। ঢাকা শহরের বিভিন্ন পাখির বাসা আর গুগুলে সার্চ  দিয়ে তা সম্পর্কে কিছু বর্ননা এখানে প্রকাশিত । সকল ছবি ঢাকা শহরের বিভিন্ন রাস্তার ধারের বসবাসকারী পক্ষীকুলের। বক Ardeidae গোত্রের অন্তর্গত আধা জলচর বা ঝবসর aquatic পাখি। পৃথিবীজুড়ে ৬৫ প্রজাতির বক আছে। বাংলাদেশে রয়েছে ১৮ প্রজাতির বক। এখনো বিলঝিল, খাল, নদী, হ্রদ, পুকুর, হাওর-বাঁওড়ের বকের দেখা মেলে।

বাংলাদেশে যে কয়টি বক জাতীয় পাখি রয়েছে তার মধ্যে ৫টি বগা, ৯টি বক এবং ৪টি বগলা। বগাগুলো হল ছোট বগা, মাঝলা বগা, প্রশান্ত শৈল বগা, বড় বগা এবং গো বগা। যে নয়টি বক রয়েছে সেগুলো হল ধুপনি বক, দৈত্য বক, ধলপেট বক, লালচে বক, চীনা কানি বক, দেশি কানি বক, কালামাথা নিশি বক, মালয়ী নিশি বক এবং খুদে সবুজ বক।

bok

বগলাগুলো হল খয়রা বগলা, হলদে বগলা, কালা বগলা এবং বাঘা বগলা। উল্লেখিত ১৮ প্রজাতির মধ্যে ধলাপেট বক ও মালয়ী নিশি বক সংকটাপন্ন। রেকর্ড থাকলেও পৃথিবীর সবচেয়ে বড় বক দৈত্য বক আজ আর দেখা যায় না। ধুপনি বক আগের তুলনায় অনেক কম এবং লালচে বকও কমে গেছে। এ ছাড়া অন্য প্রজাতিগুলোও আগের তুলনায় সংখ্যায় অর্ধেকে নেমে এসেছে। 

বকরা সাধারণত জলাভূমির পাশে বড় কোন গাছে, নয়তো বাঁশ ঝাড়ে বাথান গড়ে তুলে ঝাঁক বেঁধে বাস করে। একটা বাথানে অনেক পাখি থাকে। কোন কোন বাথানে দু’শ থেকে তিন’শ পর্যন্ত বককেও এক সাথে থাকতে দেখা গেছে। 


সৈয়দ সাইফুল আলম, পরিবেশ কর্মী

Comments