অতিথি পাখির কলকাকলিতে মুখর ‘নীলফামারীর নীলসাগর’

Print Friendly, PDF & Email

01552601805_20140102015323সবুজপাতা ডেস্ক: অতিথি পাখির কলকাকলিতে মুখরিত হয়ে উঠেছে নীলফামারীর নীলসাগর । অপরূপ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি ও অতিথি পাখির কিচিরমিচির শব্দ শুনতে বিভিন্ন স্থান থেকে এখানে ছুটে আসছেন নানা বয়সের দর্শনার্থী। প্রকৃতির শাশ্বত অপরূপ সৌন্দর্যের এই বিনোদন কেন্দ্রটিকে পর্যটন বিভাগের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে এলাকাবাসী।

নীলফামারীর শহর থেকে ১৪ কিলোমিটার দুরে গোড়গ্রাম ইউনিয়নের ধোপাডাঙ্গা মৌজায় ৫৩ দশমিক ৬০ একর জমির উপর অবস্থিত নীলসাগর। উত্তর-দক্ষিণ দিকে লম্বা এই দীঘিকে ঘিরে রয়েছে বহু উপাখ্যান ও রূপকথা। কথিত আছে তৎকালীন বিরাট রাজা নামে এক রাজার বসবাস ছিল এখানে। তার বিপুল সংখ্যক গবাদি পশু ছিল। এ গবাদি পশুগুলোকে গোসল ও পানি খাওয়ানোর জন্য তিনি একটি দীঘি খনন করান। রাজার নামানুসারের দীঘির নামকরণ করা হয় বিরাট দীঘি। কালের বিবর্তনে বিরাট দীঘি বিন্নাদীঘি নাম ধারণ করে। ১৯৯৮ সালে এ দীঘির নামকরণ নীলফামারীর নামানুসারে নীলসাগর রাখা হয়।

শীত মৌসুমে সুদূর সাইবেরিয়া থেকে হাজার হাজার অতিথি পাখির আগমন ঘটে নীলসাগরে। এ সময় পাখির কলকাকলিতে মুখরিত হয়ে উঠে নীলসাগর। পাখির কলকাকলি আর পানিতে ডানা ঝাপটানোর শব্দ গ্রামের নির্জনতাকে ভেঙে দেয়। অতিথি পাখিরা বিভিন্ন প্রজাতির সবুজ বৃক্ষরাজিতে ঘেরা এই নীলসাগরের নৈসর্গিক সৌন্দর্য আরো বাড়িয়ে তোলে। এ সৌন্দর্য উপভোগ করতে প্রতি বছর বিভিন্ন এলাকা থেকে আসেন হাজারো দর্শনাথী। বিশেষ করে উত্তরাঞ্চল থেকে প্রতি বছর সৌন্দর্য পিপাসুরা ছুটে আসেন। কেউ বনভোজনের জন্য আর কেউ বা প্রকৃতির সৌন্দর্যলীলা উপভোগ করতে আসেন।

Comments