১ দিনে রোপণ করা হবে ৬২ হাজার চারাগাছ !

Print Friendly, PDF & Email

চাঁদপুর, ৫ আগস্ট: ‘একটি গাছ-একটি প্রাণ’ এ স্লোগান নিয়ে কচুয়া উপজেলা পরিষদের উদ্যোগে আগামী ১৩ আগস্ট উপজেলায় ৬২ হাজার ফলজ ও বনজ গাছ রোপণ করা হবে।

উপজেলা পরিষদের অর্থায়নে উপজেলার সর্বত্র একদিনে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন অফিসের আঙিনা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন স্থানে গাছের চারা রোপণ করা হবে।

সোমবার (৩ আগস্ট) সন্ধ্যায় চাঁদপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে স্থানীয় সংবাদকর্মীদের সঙ্গে কচুয়া উপজেলা চেয়ারম্যান শাহজাহান শিশির মতবিনিময়কালে পরিবেশ রক্ষায় তার এ ব্যতিক্রমধর্মী আয়োজনের কথা উল্লেখ করেন।

এ সময় তিনি বলেন, ‘বিগত বছর বিভিন্ন রাজনৈতিক সহিংস কর্মসূচিতে যেভাবে গাছ নিধন করা হয়েছে, তা কাটিয়ে ওঠা এবং পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় উপজেলা পরিষদের তহবিল ও ব্যক্তিগত তহবিলের মাধ্যমে এ উদ্যোগ বাস্তবায়ন করা হবে।’ এজন্য প্রায় ১৫ লাখ টাকা খরচ হবে বলে তিনি জানান।

তিনি আরও বলেন, ‘১৯৮৮ সালে পরিবেশ বিজ্ঞানীদের আইপিসিসি প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, প্রতিনিয়ত গ্রিনহাউজ গ্যাস নিঃস্বরণ হ্রাস করা সম্ভব না হলে পৃথিবীর তাপমাত্রা বাড়তে থাকবে। ফলে মেরু অঞ্চলের বরফ গলে সমুদ্র পৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি পাবে। আর এভাবেই বন্যার প্রকোপ, অতি বৃষ্টি, খরা, সাইক্লোনের প্রভাব বাড়ছে ও কৃষি উৎপাদন হ্রাস পাচ্ছে। আর পৃথিবীর উপর তার প্রভাব বাড়ছে। এ কারণেই জলবায়ুর পরিবর্তনের সঙ্গে দুর্যোগ, অতিরিক্ত গরম, ঠাণ্ডা, হৃদরোগসহ শ্বাসকষ্টজনিত রোগ বেড়েই চলছে। এতে শিশুরা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এছাড়া এর প্রভাব পড়ছে কৃষি, জনস্বাস্থ্য, জীব বৈচিত্র্য, উপকূলীয় এলাকার প্রাকৃতিক সম্পদ ও অবকাঠামোগত ক্ষতিসাধন অব্যাহত হচ্ছে।’

তিনি সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘এজন্য কচুয়া উপজেলা পরিষদের মাধ্যমে নাগরিক, ধর্ম, বর্ণ, গোষ্ঠীসহ সবাই একত্রিত হয়ে আগামী ১৩ আগস্ট সকাল ১০টায় প্রত্যেকটি স্কুল, কলেজ, মাদরাসা, প্রতিটি সরকারি-বেসরকারি ভবনে একযোগে ৬২ হাজার ফলজ ও বনজ গাছ রোপণ করে সচেতনা বৃদ্ধি করা হবে।’ এতে তিনি সাংবাদিকদের সহায়তা কামনা করেন।

চাঁদপুর প্রেসক্লাব সভাপতি শহীদ পাটোয়ারীর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক রহিম বাদশার সঞ্চালনায় সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন, কচুয়া উপজেলা ভাইস-চেয়ারম্যান অ্যাড. হেলাল উদ্দিন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সালমা শহীদ।

বক্তব্য দেন, প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ইকরাম চৌধুরী, কাজী শাহাদাত ও শাহ্ মাকসুদুল আলম, সাবেক সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আহছানুজ্জামান মন্টু ও সহ-সভাপতি বিএম হান্নান। প্রশ্নোত্তর পর্বে অংশ নেন আলম পলাশ, সোহেল রুশদী, শাহাদাত হোসেন শান্ত ও আবদুল আউয়াল রুবেল।

বক্তব্যে চেয়ারম্যান শাহজাহান শিশির আরো বলেন, ‘প্রতিটি মানুষ বছরে পয়েন্ট জিরো ২ টন কার্বন-ডাই-অক্সাইড পরিবেশে নিঃস্মরণ করে। এতে পরিবেশের উপর ব্যাপক প্রভাব পড়ে। বিপরীতে পরিমাণমতো গাছ না থাকায় আমরা অক্সিজেন পাচ্ছি না। তাই এর প্রভাব জলবায়ুর উপর পড়ছে। এ কারণেই আগামি কয়েক দশকে আমাদের নিম্নাঞ্চল তলিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা প্রবল বা ঝুঁকিতে রয়েছে।

তিনি দাবি করেন, রোপণকৃত গাছের মধ্যে ৩০ শতাংশ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও বাকি ৭০ শতাংশ উপকারভোগী প্রতিটি নাগরিকের বাসা-বাড়ির আঙ্গিনাসহ আশপাশের রাস্তা-ঘাটে রোপণ করা হবে। এর মধ্যে যদি ১০ শতাংশ গাছ আগামি ১০ বছর পর্যন্ত রক্ষা করা সম্ভব হয় তাহলে গড়ে ১০ কোটি টাকার সম্পদ তৈরি করা সম্ভব হবে। পাশাপাশি পরিবেশবান্ধব সৌন্দর্য রক্ষাসহ অক্সিজেন ভোগ করতে পারবো।

সবুজপাতা প্রতিবেদক

Comments