নারী কৃষকদের স্বীকৃতি দেয়ার দাবি

Print Friendly, PDF & Email

ঢাকা,১জুন: খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতে পুরুষের পাশাপাশি বিরমাহীন কাজ করে যাওয়া নারী কৃষকদের যথাযথ মূল্যায়ন ও তাদের কাজের স্বীকৃতি দেয়ার দাবি জানিয়েছেন বেসরকারি সংস্থা অক্সফাম।

রোববার রাজধানীর বিয়াম অডিটরিয়ামে খাদ্য নিরাপত্তায় নারী কৃষকদের অধিকার সংরক্ষণে জাতীয় প্রচারাভিযান শীর্ষক অনুষ্ঠানে এ দাবি জানানো হয়। এসময় খাদ্য নিরাপত্তায় বিশেষ অবদান রাখায় বিভাগীয় পর্যায়ে সাতটি বিভাগের সাতজন নারী কৃষককে সম্মাননাও প্রদান করে সংস্থাটি।

বিভাগীয় পর্যায় থেকে নির্বাচিত শ্রেষ্ঠ নারী কৃষকেরা তাদের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করতে গিয়ে বলেন, নারীরা ২ দিনে ২৫ শতাংশ জমি খনন করতে পারে। সে কাজটি করতে পুরুষদের সময় লাগে ৭ দিন। অথচ রাষ্ট্র একজন নারী কৃষক হিসেবে আজও স্বীকৃতি দেয়নি। পুরুষের সঙ্গে কাধে কাধ মিলিয়ে কাজ করা এবং দেশের মানুষের খ্যাদ্যের চাহিদা পূরণে ভূমিকা রাখায় রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে স্বীকৃতি পাওয়াটা তাদের অধিকার বলেও দাবি করেন তারা।

এ সময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া বলেন, বাংলাদেশে নারীরা পিছিয়ে রয়েছে এটা বলা যাবে না। বাংলাদেশে নারী কৃষকরা পিছিয়ে থাকবে এটা আমি বিশ্বাসও করতে চাই না। বিপুল অংশের মানুষকে পিছিয়ে রেখে কোন দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন সম্ভব নয়। তাই নারীরা যে কাজ করছেন তার স্বীকৃতি প্রদান করতে হবে। তিনি তার বক্তব্যে নারী কৃষকদের কাজের সঠিক মূল্যায়ন ও রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির প্রদানের উপর গুরুত্বারোপ করেন।

তিনি আরো বলেন, যে বাংলাদেশ একসময় সাড়ে সাত কোটি মানুষকে খাওয়াতে পারেনি সেই বাংলাদেশ আজ ১৬ কোটি মানুষের খাদ্যের চাহিদা পুরণ করে খাদ্য রপ্তনি করছে। এটি বর্তমান সরকারের বড় অর্জন। আর এ অর্জন সম্ভব হয়েছে দেশের নারী ও পুরুষ কৃষকদের অক্লান্ত পরিশ্রম ও কৃষিবান্ধব শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারের প্রগতিশীল নীতি নির্ধারণের কারণে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য শিরিন আক্তার বলেন, আমরা মুখে নারীর অধিকারের কথা বললেও যখন সম্পত্তিতে সমধিকার প্রদানের প্রশ্ন আসে তখন আর সেটা মেনে নিতে পারি না।

অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে সাতটি বিভাগের ৭ জন সেরা নারী কৃষককে অক্সফামের পক্ষ থেকে সন্মাননা প্রদান করা হয়। তাদের হাতে ক্রেষ্ট ও উত্তরীয় তুলে দেন ডেপুটি স্পিকার।

অক্সফামের পলিসি এন্ড অ্যাডভোকেসি ম্যানেজার মনীষা বিশ্বাসের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া, সংসদ সদস্য শিরীন আক্তার ও অক্সফামের কান্ট্রি ডিরেক্টর স্নেহাল ভি সোনেজি বক্তব্য দেন। এর আগে জাতীয় সংগীতের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন হয়। এরপর অক্সফ্যামের এই প্রচারাভিযানের সঙ্গে একাত্বতা প্রকাশ করেন ইউএসএইডর এভিসি প্রজেক্ট, প্রাকটিক্যাল অ্যাকশন, মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনসহ বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থার প্রতিনিধিরা। দেশের সাতটি বিভাগ থেকে সর্বমোট ৯০ জন নারী কৃষক অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

সবুজপাতা প্রতিবেদন

Comments