দূষণ কমাতে ৩ কোটি উন্নত চুলা আনছে সরকার

Print Friendly, PDF & Email

ঢাকা,২৪ফেব্রুয়ারী : পরিবেশ দূষণ কমাতে ২০৩০ সালের মধ্যে তিন কোটি উন্নত চুলা সরবরাহের পরিকল্পনা নিয়েছে সরকার। জার্মানির দাতা সংস্থা জিআইজেডসহ বিভিন্ন উন্নয়ন সংস্থা সরকারকে এ পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সহায়তা করছে।

এ পরিকল্পনার অংশ হিসেবে গ্লোবাল অ্যালায়েন্স ফর ক্লিন কুকস্টোভ (জিএসিসি) নামে একটি আন্তর্জাতিক সংস্থার সঙ্গে সমঝোতা চুক্তি (এমওইউ) সই করেছে সরকারের নবায়নযোগ্য জ্বালানি উন্নয়ন সংস্থা স্রেডা। রোববার বিদ্যুৎ ভবনে এ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

অনুষ্ঠানে বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, ‘গ্রামের চিত্র অনেক বদলে যাচ্ছে। ২০২১ সালের মধ্যে প্রতিটি বাড়িতে বিদ্যুৎ পৌঁছে যাবে। উন্নত আধুনিক চুলার ব্যবহার বাড়বে। লাকড়ির ব্যবহার কমে যাবে। তবে কিছু দুর্গম এলাকা রয়েছে যেখানে হয়তো বিদ্যুৎ পৌঁছানো যাবে না। সেসব এলাকায় সৌর বিদ্যুৎ ও উন্নত চুলার ব্যবহারের মাধ্যমে জ্বালানি সমস্যার সমাধান করতে হবে।’

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে অন্যান্য বক্তারা বলেন, ‘গ্রামে এখন আদি আমলের চুলা ব্যবহৃত হচ্ছে। এই চুলার নির্গত ধোঁয়ার কারণে প্রতি বছর ৫০ হাজার নারী শিশু বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়। যে কারণে উন্নত বন্ধু চুলা ব্যবহার করা প্রয়োজন।’

এ প্রসঙ্গে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘উন্নত চুলার ব্যাবহার বাড়াতে সচেতনতা বৃদ্ধি করা জরুরি।’

স্রেডার চেয়ারম্যান অতিরিক্ত সচিব তাপস কুমার রায়ের সভাপতিত্বে এমওইউ স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- বিদ্যুৎ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব আহমদ কায়কাউস, জিএসিসির আঞ্চলিক পরিচালক অরিজিত বসু প্রমুখ।

সবুজপাতা প্রতিবেদন

Comments