স্বাধীনতার ৪৩ বছরে এসে নদীরক্ষা কমিশন

Print Friendly, PDF & Email

ঢাকা, ৩ সেপ্টেম্বর: নদী মাতৃক বাংলাদেশ তার স্বাধীনতার ৪৩ বছরে এসে পেল একটি নদীরক্ষা কমিশন। সারাদেশে নদী সুরক্ষায় কাজ করবে এই জাতীয় নদী কমিশন। ইতোমধ্যে কমিশনের চেয়ারম্যান ও সদস্যরা কমিশনে যোগদান করেছেন। আরো তিন সদস্যকে স্বল্প সময়ের মধ্যে নিয়োগ দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান। পর্যাপ্ত জনবল নিয়োগ দেয়া হলে এবং কমিশন নদীবান্ধব হলে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের সদিচ্ছার প্রতিফলন ঘটলে অব্যহত দূষন-দখলের হাত থেকে নদী সুরক্ষা নিশ্চিত করার উপায় তৈরী হবে বলে আশা পরিবেশ বাদীদের।

নদী দখল ও দূষণকারীদের এ যুগের ‘রাজাকার’ বলে আখ্যায়িত করে নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের সময় যারা প্রাণহানি ঘটিয়েছিল, তাদেরকে আমরা রাজাকার বলি। নদীরও প্রাণ আছে। তাই নদীকে যারা দখল ও দূষণের মধ্য দিয়ে ধ্বংস করছে, হত্যা করছে, তাদের এ যুগের রাজাকার আখ্যায়িত করাই সমীচীন।’

Shiping Minsterরাজধানীর দৈনিক বাংলা মোড়ে বুধবার সকালে বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশন (বিএসসি) টাওয়ারে জাতীয় নদী রক্ষা কমিশন কার্যালয়ের উদ্বোধনকালে তিনি এ মন্তব্য করেন।

 অনুষ্ঠানে মন্ত্রী শাজাহান খান জানান, “নদী দখলমুক্ত করার জন্য গঠিত টাস্কফোর্সের ২৬টি সভা হয়েছে। সভার সিদ্ধান্তের আলোকে ইতিমধ্যে প্রায় সাড়ে তিন হাজার অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে।” অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন নৌপরিবহন সচিব সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম, জাতীয় নদী কমিশনের চেয়ারম্যান আতাহারুল ইসলাম।

 নদীর অবৈধ দখল, পরিবেশ দূষণ, শিল্পকারখানা সৃষ্ট নদী দূষণ, অবৈধ কাঠামো নির্মাণ ও নানাবিধ অনিয়ম রোধকল্পে সরকার ২০১৩ সালে ২২ জুলাই জাতীয় নদী রক্ষা কমিশন আইন পাস করে। এই আইনের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে গত ৩ আগস্ট এই কমিশন গঠন করা হয়।এ উপলক্ষে জাতীয় নদী রক্ষা কমিশন আয়োজিত এক আলোচনা সভায় নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাজাজান খান বলেন, ‘জাতীয় স্বার্থে দেশের সরকারি ও বেসরকারি সব সংস্থা ও প্রতিষ্ঠান নদী রক্ষা সংক্রান্ত সব কার্যক্রমের মধ্যে সমন্বয় ঘটানো প্রয়োজন।’ কার্যকর সমন্বয়ের মাধ্যমে নদী রক্ষা, পরিবেশগত ভারসাম্য রক্ষার জন্য সব উল্লেখিত সংস্থা প্রধানদের সহযোহিতা কামনা করেন মন্ত্রী।

নৌ-পরিবহন মন্ত্রী আরো বলেন, ‘এসব কার্যক্রম বাস্তবায়নে কমিশনের জন্য এক কঠিন চ্যালেঞ্জ, তবে দুরুহ নয়। এর জন্য প্রয়োজন সঠিক পরিকল্পনা, দৃঢ় পদক্ষেপ ও সবার আন্তরিক সহযোগিতা প্রয়োজন।’

তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, ‘কমিশন অতিদ্রুত স্বল্প, মধ্যম ও দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা প্রণয়ন করে বাস্তবায়নের পদক্ষেপ নেবে। নদী বাঁচলে দেশ বাঁচবে, দেশ বাঁচলে মানুষ বাঁচবে।’

 নিজস্ব প্রতিবেদন

Comments