বৈশ্বিক উষ্ণতার প্রভাবে হারিয়ে যাবে কিরিবাটি নামক দ্বীপটি !

Kiribati-Moves-to-Fiji-3

সবুজপাতা ডেস্ক: প্রশান্ত মহাসাগরের অসংখ্য দ্বীপের মাঝে কিরিবাটি নামক দ্বীপদেশটি বৈশ্বিক উষ্ণতার প্রভাবে সৃষ্ট সমুদ্রের পানি বৃদ্ধির প্রভাবে ধীরে ধীরে তলিয়ে যাচ্ছে, সাগরের বুকে বিলীন হয়ে যাচ্ছে একটি জাতি।

কিরিবাটি দ্বীপদেশটি প্রশান্ত মহাসাগরের বুকে অবস্থিত এর জনসংখ্যা প্রায় ১০০,০০০ এখানে আলাদা সরকার ব্যবস্থাও রয়েছে। কিন্তু বেশ কিছু বছর ধরে সারা বিশ্বে তৈরি হওয়া বৈশ্বিক উষ্ণতার ফলে সমুদ্রের জল সীমা বৃদ্ধির আতংকের মাঝে বিপদে থাকা দেশ সমূহের মাঝে কিরিবাটি দ্বীপ একটি। এরই মাঝে কিরিবাটি সমুদ্র গর্ভে বিলীন হতে শুরু করেছে।

কিরিবাটি ডুবতে শুরু করায় এখানকার জনগণকে অন্যত্র রিফিউজি হিসেবে সরিয়ে নেয়ার প্রক্রিয়াও শুরু করা হয়ে গেছে। গবেষকদের বিশ্লেষণ অনুযায়ী আগামী ২০৩০ সালের মাঝেই সমুদ্র স্রোত কিরিবাটি দ্বীপের সবচেয়ে উঁচু অংশ চুইয়ে যাবে।

ইতোমধ্যে এই অঞ্চলের পানি অনেকটাই সমুদ্রের পানির প্রকোপে লবণাক্ত হয়ে গেছে সুতরাং সেখানকার পানি পানের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। কিরিবাটি দ্বীপের রাষ্ট্রপতি এরই মাঝে সেখানে জনগণকে অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার প্রক্রিয়া শুরু করে দিয়েছেন।

এদিকে কিরিবাটির রাষ্ট্রপতি Anote Tong পড়েছেন ভয়ংকর সমস্যায়! এক দিকে দেশের বর্তমান প্রেক্ষিতে জনগণকে বাঁচাতে আগে তাঁর প্রয়োজন প্রচুর অর্থ একই সাথে অন্য কোন দেশের সাথে একটি আদর্শ চুক্তি যে চুক্তির আওতায় ঐ দেশ কিরিবাটির ১০০,০০০ এর অধিক জনগণকে নিজ দেশে স্থান দিবে!

কিরিবাটি মৎস্য সম্পদে ভরপুর তবে বর্তমানে তাঁদের নিজের ভূখণ্ড রক্ষা করার কোন উপায় নেই দেশটির রাষ্ট্রপতি ৬,০০০ একর যায়গা কিনেছেন ফিজি সরকারের কাছ থেকে কিন্তু এতো বিশাল জনসংখ্যার যায়গা দিতে এ পরিমান এলাকা পর্যাপ্ত নয় ফলে আরও যায়গা কেনা প্রয়োজন।

শুধু কিরিবাটি নয় পৃথিবীর অনেক দেশ বৈশ্বিক উষ্ণতার ফলে পরিবেশ বিপর্যয়ের কবলে পড়বে এবং একসময় সমুদ্র গর্ভে হারিয়ে যাবে, ২০৫০ সালের দিকে আমাদের বাংলাদেশের অনেক অঞ্চলও কিরিবাটির মত সমুদ্রে হারিয়ে যাবে বলেই মত দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। কিরিবাটির মাত্র ১ লক্ষ জনগণ নিয়ে সেখানকার সরকার আজ বিপদে কিন্তু আমাদের তো কয়েক কোটি মানুষ! এতো জনগণ নিয়ে আমাদের সরকার কোথায় যাবে সে সময়! কিংবা কোন দেশ আমাদের যায়গা দিবে? বর্তমানে অনেকেই বিষয়টি নিয়ে না ভাবলেও এক সময় এটি বিলিয়ন ডলারের প্রশ্ন হয়ে দাঁড়াবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top