১০ কৃষক ও কৃষি প্রতিষ্ঠান পেল কৃষি পুরস্কার

Print Friendly, PDF & Email

ঢাকা, ২ আগস্ট: স্ট্যান্ডার্ড চার্টাড ব্যাংক বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশ ব্র্যান্ড ফোরাম (বিবিএফ) যৌথভাবে বাংলাদেশের কৃষিখাতে অভূতপূর্ব অবদানের জন্য ১০ জন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে সম্মাননা দিয়েছে। এটি এ ধরনের দ্বিতীয় পুরস্কার।

রোববার রাজধানীর গুলশান ওয়েস্টিন হোটেলে আয়োজিত ‘স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড অ্যাগ্রো অ্যাওয়ার্ড ২০১৫’ শীর্ষক এক অনুষ্ঠানে এ সম্মাননা প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমান।

যেসব ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান পুরস্কার ও সম্মাননা পেলে তারা হলো- সেরা কৃষক হিসেবে পুরুষের মধ্যে মো. বিল্লাল শিকদার, মো. আবু হানিফ মোড়ল। বছরের সেরা কৃষক নারীর তালিকায় ফাতেমা জোহরা, রেশমা বেগম। এছাড়া বছরের সেরা কৃষক হিসেবে মার্কেট ফার্মার গ্রুপ বিভাগে ইন্টিগ্রেটেড ফার্মিং গ্রুপ, ভার্মিকম্পোস্ট গ্রুপ। উদ্ভাবন ও গবেষণায় সেরা প্রতিষ্ঠান হিসেবে লাল তীর সিড লিমিটেড, সহায়তা ও বাস্তবায়নে সেরা প্রতিষ্ঠান হিসেবে ব্র্যাক, কৃষি খাতে প্রযুক্তির সর্বোত্তম ব্যবহার বিভাগে আমার দেশ আমার গ্রাম, সেরা কৃষি বিষয়ক রপ্তানিকারক হিসেবে সিমার্ক গ্রুপ।

‘স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড অ্যাগ্রো অ্যাওয়ার্ড ২০১৫’ বিজয়ী সবার হাতে ক্রেস্ট ও সনদ তুলে দেয়ার পাশাপাশি বছরের সেরা কৃষক বিভাগে তিনজন বিজয়ীকে ৫ লাখ টাকা এবং সম্মাননা প্রাপ্তদের ৫০ হাজার টাকা করে প্রাইজ মানি বা অর্থ পুরস্কার প্রদান করা হয়।

জানা গেছে, অ্যাগ্রো অ্যাওয়ার্ড নামে সমধিক পরিচিত এই সম্মাননা দেয়া হয় সাত ক্যাটাগরি বা শ্রেণীতে। এ জন্য এবার মোট ৩০০ জন প্রতিযোগীর মনোনয়ন গ্রহণ করা হয়। কৃষি ও কৃষি সংশ্লিষ্ট খাতের বিশেষজ্ঞ, নীতিনির্ধারক এবং উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে গঠিত দুটি বিজ্ঞ বিচারক প্যানেলের মাধ্যমে প্রতি বিভাগে বিজয়ীদের সন্মাননার জন্য বাছাই করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী বলেন, ‘দেশের কৃষিখাতে বিশেষ অবদানের জন্য বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে দ্বিতীয় বছরের মতো সন্মাননা জানিয়ে অ্যাগ্রো অ্যাওয়ার্ড প্রদানের প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। বিজয়ী ও সন্মাননার জন্য মনোনিত ব্যক্তিরা ইতিমধ্যে তাদের কঠোর পরিশ্রম ও উদ্ভাবনের দ্বারা আমাদের কৃষিখাতে দৃষ্টান্তমূলক অবদান রেখেছেন। আমরা আশা করি, অ্যাগ্রো অ্যাওয়ার্ড ও এ বছরের বিজয়ীরা তাদের প্রচেষ্টা ও প্রতিশ্রুতি অব্যাহত রাখবে এবং এতে গোটা বাংলাদেশের লাখ লাখ কৃষক খাদ্য উৎপাদনকে পরবর্তী ধাপে নিয়ে যেতে উৎসাহিত হবেন।’

বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমান ‘স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড অ্যাগ্রো অ্যাওয়ার্ড- ২০১৫’ এর জন্য মনোনিত ও সম্মাননাপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের আমি আন্তরিক অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, এই পুরস্কার আমাদের তৃণমূল পর্যায়ের কৃষক, ডেইরি বা দুগ্ধশিল্প, শস্য আবাদকারী, লাইভস্টক ডিস্ট্রিবিউটর বা পশুসম্পদ পরিবেশক ও বাজারজাতকারী, গবেষক এবং সংশ্লিষ্ট অন্যান্য শিল্পকে উৎসাহিত করবে। এর ফলে সবার প্রতিশ্রুতি কৃষি খাতকে আরেক ধাপ উন্নয়নের দিকে নিয়ে যাবে।’

স্ট্যান্ডার্ড চার্টাড ব্যাংক বাংলাদেশের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) আবরার এ. আনোয়ার বলেন, ‘আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, বাংলাদেশের টেকসই উন্নয়নের এক অবিচ্ছেদ্য অংশ হলো কৃষিখাত। আমি মনে করি, এই উদ্যোগের মাধ্যমে আমরা দেশজুড়ে হাজার হাজার কৃষক এবং কৃষিখাতের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানসমূহকে এদেশের কৃষিখাতে দৃষ্টান্তমূলক অবদান রাখা এবং টেকসই কৃষি খাত গড়ে তোলার ব্যাপারে উৎসাহিত করতে সক্ষম হব।’

উল্লেখ, স্ট্যান্ডার্ড চার্টাড ব্যাংক বাংলাদেশ ২০১৪ সাল থেকে অ্যাগ্রো অ্যাওয়ার্ড প্রদান করে আসছে। ওই বছর থেকেই স্ট্যান্ডার্ড চার্টাড ও বাংলাদেশ ব্র্যান্ড ফোরাম (বিবিএফ) দেশের কৃষি খাতে বিশেষ অবদান রাখা কৃষকদের সম্মাননা দেয়ার ব্যাপারে যৌথভাবে কাজ করে আসছে।

সবুজপাতা প্রতিবেদক

Comments