ঢাবিতে পরিচ্ছনতা কার্যক্রম

Print Friendly

ঢাকা; ২৯ জুন:  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে পরিচ্ছন্ন রাখতে এবং শিক্ষার্থীদের মাঝে পরিচ্ছন্নতা সচেতনতা বাড়াতে ক্যাম্পাসে তিন দিন ব্যাপি পরিচ্চন্নতা অভিযান শুরু করেছে বিশ্ববিদ্যালয় রোভার স্কাউট।

সকালে অপরাজেয় বাংলা থেকে এই অভিযানের উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক। এই অভিযানে রোভার স্কাউটের সদস্যরা তিন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন স্থান থেকে আবর্জনা পরিস্কার করবেন। এসময় তারা যেখানে সেখানে আবর্জনা না ফেলতে শিক্ষার্থীদের সচেতন করতে কাজ করে যাবেন। এই কার্যক্রমে রোভার স্কাউটদের সহযোগীতা করছে ঢাকা দক্ষিন সিটি কর্পোরেশন।

cvdsvgfsdgfsdgfsd

পেছনের কথা:

১০-১২ গজ জায়গাজুড়ে বড় বড় কয়েকটি আবর্জনার স্তূপ। সেগুলো ঘেঁটে বেচার মতো জিনিস খুঁজছিল কয়েকজন টোকাই। একটু দূরে একটি গোয়ালঘর। জায়গাটি কয়েকটি গরুর কঠিন-তরল বর্জ্যে স্যাঁতসেঁতে। বৃষ্টি অবস্থা আরও বেগতিক করেছে। ময়লা পানি ও আবর্জনা পৌঁছে গেছে পাশের সড়ক পর্যন্ত। নোংরা ও দুর্গন্ধে পাশে দাঁড়ানো দায়। দৃশ্যটি কোনো বস্তি কিংবা শরণার্থী শিবির এলাকার নয়। এটি এক সময় ‘প্রাচ্যের অক্সফোর্ড’ হিসেবে খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কবি জসীমউদ্দীন হল ও জিয়া হলসংলগ্ন এলাকার ছবি। এ দুটি হল ছাড়াও বঙ্গবন্ধু হলের ছাত্রদের প্রতিদিন এই আবর্জনা মাড়িয়ে চলাফেরা করতে হয়। খেয়াল করে দেখলে বোঝা যাবে, আবর্জনার উৎসটি আসলে একটি ডাস্টবিন। কিন্তু সেখানে নির্ধারিত বড় টিনের পাত্রে ময়লা ফেলছেন না কেউ। অনেকেই ডাস্টবিনের বাইরে এমনকি সড়কঘেঁষে আবর্জনা ফেলেন। শুধু ওপরের হলগুলোর আশপাশ নয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবন, রেজিস্ট্রার বিল্ডিং, সূর্যসেন হল, জগন্নাথ হল, কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি, মিলন চত্বরসহ বেশ কয়েকটি জায়গা ঘুরে ময়লা-আবর্জনা ও নোংরা পরিবেশের কমবেশি প্রমাণ পাওয়া গেছে। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ যেমন নষ্ট হচ্ছে, তেমনি তা স্বাস্থ্যঝুঁকি সৃষ্টি করছে সংশ্লিষ্ট সবার জন্য। এ ছাড়া দেশি-বিদেশি অভ্যাগত ব্যক্তিদের কাছে ভাবমূর্তির বিষয়টি তো আছেই।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ৭০ থেকে ৭২ জন পরিচ্ছন্নতা কর্মী কাজ করেন। অভিযোগ রয়েছে, তাঁরা নিয়মিত বর্জ্য অপসারণ ও প্রাঙ্গণ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করেন না।

বিভিন্ন মাত্রার অপরিচ্ছন্নতা আর আবর্জনার আগ্রাসন দেখা গেছে কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির পেছনের অংশ, ডা. মিলন স্মৃতিফলক, কলাভবনের আশপাশ, ডাকসু, মুহসীন হলের মাঠের পূর্ব ও এফ রহমান হলসংলগ্ন পশ্চিমাংশ, জগন্নাথ হলের উত্তরবাড়ির পেছনের জায়গা, বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেল সেন্টার, লেকচার থিয়েটারের পেছনের অংশসহ অনেক জায়গায়। 

-কামরুল হাসান, গণমাধ্যমকর্মী

Comments