মরুময়তা প্রতিরোধ দিবস আজ

Print Friendly, PDF & Email

সবুজপাতা ডেস্ক, ১৫ জুন: জলবায়ু পরিবর্তন এবং মানুষের পরিবেশ বিধ্বংসী কর্মকান্ডের ফলে ভূমি অবক্ষয় প্রক্রিয়াই হচ্ছে মরুকরণ। মরুকরণ বিস্তার রোধে প্রয়োজন পরিবেশ সম্মতভাবে, গ্রহণযোগ্য ন্যায়ানুগ ও অর্থনৈতিকভাবে সম্ভাবনাময় পদ্ধতিতে ভূমির ব্যবহার। মরুময়তা বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে আজ বিশ্বব্যাপী পালিত হচ্ছে আন্তর্জাতিক মরুময়তা দিবস।

১৯৯২ সালে রিও ডি জেনিরোতে অনুjian_bao_1_3ষ্ঠিত জাতিসংঘের পরিবেশ ও উন্নয়নবিষয়ক সম্মেলনের পরপরই মরুকরণ সংক্রান্ত আন্তর্জাতিক কনভেনশন গ্রহণের প্রক্রিয়া শুরু হয়। রিও সম্মেলনের এজেন্ডা ২১-এর প্রস্তাবটি ১৯৯২ সালে জাতিসংঘে সাধারণ পরিষদের ৪৭তম অধিবেশনে গৃহীত হয় এবং ইন্টারগভর্মেন্টাল নেগোশিয়েটিং কমিটি গঠিত হয়। এই কমিটি মরুকরণ সংক্রান্ত খসড়া কনভেনশন চূড়ান্ত করে।

১৯৯৪ সালের জুন মাসে কনভেনশনের দলিল চূড়ান্ত হয়। এই কনভেনশন ৫০টি দেশ কর্তৃক অনুমোদিত হওয়ার পর ১৯৯৬ সালের ২৬ ডিসেম্বর থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে কার্যকর হয়। বলা আবশ্যক যে, বাংলাদেশও এই কনভেনশন অনুমোদন করে। ১৯৮০ সালের মাঝামাঝি উপসাহারীয় আফ্রিকায় খরার কারণে প্রায় ৩০ লাখ লোকের মৃত্যু ঘটে। সুতরাং মরুকরণ সমস্যাটি বিশাল এক ক্ষতিকর ভৌগোলিক পরিবর্তনের নাম। বিশ্বের শুষ্ক ভূমির প্রায় ৭০ শতাংশ ইতোমধ্যে মরুকবলিত হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

ধারণা করা হচ্ছে এর পরিমাণ পৃথিবীর মোট ভূমির চার ভাগের এক ভাগ। নিষ্কাষণে অব্যবস্থা ও লবণাক্ততার ফলে সেচের আওতাধীন আবাদি জমির বিশাল অংশ বর্তমানে অবক্ষয়ের সম্মুখীন। সুতরাং মরুকরণ ভবিষ্যৎ পৃথিবীর জন্য এক বিশাল হুমকি। এজন্য সর্বাগ্রে প্রয়োজন মরুকরণ সম্পর্কিত সম্মুখ জ্ঞান এবং মরুকরণ বিস্তার রোধে সর্বাধিক পরিকল্পনা গ্রহণ।

শুষ্কভূমি পরিবেশগত desertificationদিক থেকে খুবই নাজুক। এরূপ ভূমিই সাধারণত মরুকরণের শিকার হয়। মরুকরণের ফলে ভূমির উৎপাদন ক্ষমতা ক্রমান্বয়ে হারিয়ে যায়। ফলে খাদ্য সঙ্কট, দারিদ্র্য এবং ভূখাদের সংখ্যা বৃদ্ধি পায়। আর সেজন্যই খরা, মরুকরণ প্রভৃতি বিস্তার রোধে প্রয়োজন সম্মিলিতভাবে ন্যায়ানুগ ও অর্থনৈতিকভাবে সম্ভাবনাময় পদ্ধতির আলোকে ভূমির যথার্থ ব্যবহার।
পৃথিবী প্রতিমুহূর্তে পরিবর্তিত হচ্ছে। পরিবর্তনের ধারাবাহিকতায় কখনো আইলা, সুনামি, ভূমিকম্প, সিডর, অতি-অনাবৃষ্টি, বন্যা, অচেনা অসুখ-বিসুখ দেখা দিচ্ছে দুর্যোগ আকারে। মৃত্যু হচ্ছে অসংখ্য মানুষের। নষ্ট হচ্ছে ফসল তাতে বাড়ছে খাদ্য সঙ্কট। মরুকরণ এতদিন পর্যন্ত বাংলাদেশের জন্য বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ বিষয় না হলেও এখন এটি পরিবেশ বিজ্ঞানীদের যথেষ্ট ভাবিয়ে তুলছে। আমাদের দেশ দিয়ে বয়ে যাওয়া সিডর, আইলা, নার্গিসসহ বিবিধ প্রাকৃতিক দুর্যোগ এই ভাবনাকে আরো প্রবল করে তুলছে।

একটি সমীক্ষণ থেকে জানা গেchina-desertificationছে, দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম ও উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে খরাকবলিত হয়ে ক্রমান্বয়ে ভূমির অবক্ষয় হচ্ছে। বিশেষত রাজশাহী অঞ্চলকে এই সমস্যাকবলিত অঞ্চল হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

অত্যন্ত জরুরি হলেও আন্তর্জাতিক মরুময়তা দিবস এদেশে বিশেষ গুরুত্ব বিস্তার করতে পারেনি। তবে মরুকরণ রোধে বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় সরকারের পরিবেশবান্ধব বৃক্ষ রোপণ কার্যক্রম বিশেষভাবে গৃহীত হয়েছে যা প্রশংসার দাবিদার। মরুকরণ বিস্তার রোধে অধিক বৃক্ষ রোপণই হচ্ছে সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ কাজ।

Comments