সুন্দরবনের বিকল্প নেই

Print Friendly, PDF & Email

sundarban_forest_27

সবুজপাতা ডেস্ক, ২১ মার্চ: বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের বিকল্প আছে, কিন্তু সুন্দরবনের বিকল্প নেই। সুন্দরবনের পাশে প্রস্তাবিত কয়লা ভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র হলে সুন্দরবনে এসিড সৃষ্টি হবে। পশুর নদীর বিরল প্রজাতির ডলফিন ধ্বংস হবে।
শুক্রবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ‘আন্তর্জাতিক বন দিবস’ উপলক্ষে সুন্দরবন রক্ষার দাবিতে আয়োজিত মানববন্ধনে বক্তারা এ কথা বলেন।
বেসরকারি সংস্থা সেভ দ্যা সুন্দরবন ফাউন্ডেশন (এসএসএফ), বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা), বাগেরহাট ডেভেলপমেন্ট সোসাইটি (বিডিএস) ও সেন্টার ফর হিউম্যান রাইটস মুভমেন্ট (সিএইচআরএম) এর উদ্যোগে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।  মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, প্রাকৃতিক বিপর্যয় থেকে সুন্দরবনই আমাদের দেশকে বাঁচিয়ে রেখেছে। সেই সুন্দরবনকে ধ্বংসের জন্য আমরা উঠেপরে লেগেছি। তারা বলেন, এবার রাষ্ট্রীয়ভাবে সুন্দরবনের ১৩ কিলোমিটারের মধ্যে ভারতীয় কোম্পানি এনটিপিসি ও পিডিবি যৌথ উদ্যোগে এক হাজার ৩২০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র এবং সুন্দরবনের ভেতরে ওরিয়ন গ্রুপের ২৮২ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন করলে দ্রুত ধ্বংস হয়ে যাবে সন্দুরবন। বক্তারা আরও বলেন, দেশি-বিদেশি সব পর্যবেক্ষক, পরিবেশবিদ ও পরিবেশ বিজ্ঞানী সবাই কয়লা ভিত্তিক তাপ বিদ্যু‍ৎ কেন্দ্রের বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।  সুন্দরবনে কয়লা ভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের যে ষড়যন্ত্র চলছে তা অনতিবিলম্বে বন্ধের দাবি জ‍ানান তারা। এতে সভাপতিত্ব করেন বাপার যুগ্মসম্পাদক স্থপতি ইকবাল হাবিব, এসএসএফ সভাপতি ড. শেখ ফরিদুল ইসলাম, সিএইচআরএম মহাসচিব অ্যাডভোকেট মোজাহিদুল ইসলাম, বিডিএস এর সভাপতি ব্যারিস্টার জাকির হোসেন, এসএসএফ নির্বাহী পরিচালক ডা. নরুল উদ্দিন, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব রুহিন হোসেন প্রিন্স প্রমুখ।

Comments