চট্টগ্রামের পাহাড়তলীর পুরনো গাছ কাটা হচ্ছে নির্বিচারে

Print Friendly, PDF & Email

চট্টগ্রাম; ২৬ এপ্রিল:   দুপাশে সারি সারি গাছ। কোনটি শতবর্ষী, কোনটি কয়েকযুগের পুরনো। বহুদিন ধরে বন্দর নগরীর পাহাড়তলি রেলওয়ে এলাকায় ছায়া বিলাচ্ছে এসব বৃক্ষ। তবে হঠাৎ করেই এসব বৃক্ষের গায়ে পড়েছে নির্দয় কোপ। শনিবার সকাল থেকেই টাইগারপাস-পাহাড়তলী পাঞ্জাবী লেন সড়কটির দুপাশে কুড়াল-করাত দিয়ে এভাবেই কেটে ফেলা হচ্ছে এসব ছায়াবৃক্ষ। আর এ কাজটি হচ্ছে সড়কটির সম্প্রসারনের নামে।

images

সড়কটির কাজ করছে সিটি কর্পোরেশন। তাতে ১৮ ফুট চওড়া সড়কটি দক্ষিণ পাশে সর্বোচ্চ ৩০ ফুটে উন্নীত করা হবে। এজন্য কাটার কথা ৫-৭ টি কাজ। তাতে উত্তর পাশে কোন গাছ কাটার কথা নয় । কিন্ত এই পাশটিতে অসংখ্য বৃক্ষ নিধন চললেও কে কার নির্দেশে কাটছে তা জানেন না বলে জানালেন প্রকল্প পরিচালক।

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন এর রাস্তা সম্প্রসারণ প্রকল্প পরিচালক, প্রকৌশলী সালেহ উদ্দীন জানান, আমাদে সড়ক সম্প্রসারণ হবে বাম পাশে। ৫-৭ টি গাছ এর বেশি কাটা হবে না। ডান পাশের গাছ গুলো কাটার জন্য কাউকে দায়িত্ব দেয়া হয়নি, কে বা কারা কাটছে সে ব্যাপারে আমরা কিছু জানিও না।

তবে শ্রমিকরা জানান, পাহাড়তলী ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর মোহাম্মদ হোসেন হিরণসহ স্থানীয় কয়েকজনের নির্দেশে এসব গাছ কাটা হচ্ছে। মুঠোফোনে হিরণকে পাওয়া না গেলেও কাজ তদারকিতে নিয়োজিত তার এক সহযোগি বিষয়টি স্বীকার করে জানান, কর্পোরেশনের কার্যাদেশের ভিত্তিতেই এ কাজ করছেন তারা।

তদারককারী হিরন নামের এই ব্যাক্তি ১৩ নং ওয়ার্ড আ্ওয়ামীলীগ সমর্থিত সাবেক কাউন্সিলর আর তার সহযোগী হয়েছে বাকী ২ জন,স্থানীয় বিএনপির রাজনীতির সাথে যুক্ত।

10259370_10202490904608470_1058495924_n নগরীতে ছায়া সুনিবিড় যে কটি এলাকা এখনও আছে তার একটি এই পাহাড়তলি। তাতে এসব বৃক্ষ বাড়িয়েছে এই এলাকার নান্দনিকতা। ফলে এসব গাছ কাটা পড়ায় ক্ষুদ্ধ স্থানীয়রা।

 চ্যানেল২৪ এ সংক্রান্ত একটি সংবাদ প্রচারিত হয় দুপুরে।  সংবাদ প্রচারের পরপরই এ ঘটনা তদন্তে রেল কর্তৃপক্ষ একটি কমিটি গঠন করেছেন মকবুল আহমেদ, পূর্বান্চল রেল্ওয়ের মহাব‍্যবস্থাপক।  তিনসদস্য বিশিষ্ট এই তদন্ত কমিটির প্রধান করা হয়েছে রেল্ওয়ের  ভু সম্পদ কর্মকর্তা জসিম উদ্দীনকে।   জায়গা। ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি। ভু সম্পদ কর্মকর্তা জমিম উদ্দীন।

ফকরুল ইসলাম, সংবাদকর্মী, চট্টগ্রাম।

Comments