বুয়েটের শতবর্ষী গাছ গুলো কি কেটে ফেলা হচ্ছে?

Print Friendly, PDF & Email

বুয়েট ক্যাম্পাসে শতবর্ষী গাছ গুলোকে কেটে ফেলতে ঠিকাদার নিয়োগ করেছে বুয়েট কর্তৃপক্ষ! এমনটাই জানালেন সকালে গাছ কাটতে আসা কয়েকজন ঠিকারদার। তবে উপস্থিত সুবজ প্রেমিদের কয়েক জনের প্রতিবাদে আজ রক্ষা পেয়েছে শতবর্ষী একটি গাছ। যদিও এটি কেটে ফেলার সকল আয়োজন চুড়ান্ত হয়েছে বলে জানা গেছে।

প্রকৌশলী বিশ্ববিদ্যালয়ে শতবর্ষী এই বৃক্ষটির সারা গা বিভিন্ন দাগে ক্ষতবিক্ষত। কাটা পড়েছে অনেক ডালপালা। বেশ ওপরের দিকে কয়েকটি ডালপালা এখনো বেশ সজীব। কালের সাক্ষী এই গাছটিকে নিরাপত্তার দোহাই দিয়ে কেটে ফেলা হচ্ছে। কিন্তু একবার বলা হচ্ছে না গাছটা রক্ষার জন্য কোন পদক্ষেপ নেই হয়েছে কিনা। কিসের ভিত্তিতে গাছটি ঝুকিপূর্ন তাও পরিষ্কার নয়।  বিক্ষোভকারীদের অভিযোগ, এই গাছগুলো কাটার ক্ষেত্রে যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরন করা হয়নি।

 কাটা হচ্ছে বুয়েটের গাছ

ঢাকার ৪০০ বছরের রাজধানী, কিন্তু এই শহরে ৪০০ বছর তো দূরের কথা, ২০০ বছরের পুরোনো কোন বৃক্ষও খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। রাজনৈতিক পটপরিবর্তন, প্রাকৃতিক দুর্যোগ, অসচেতনতা এবং মাত্রাতিরিক্ত লালসার কারণে এখানকার অনেক ঐতিহ্যের সঙ্গে প্রাচীন বৃক্ষ সম্পদও হারিয়ে গেছে। তাই ঢাকায় শতবর্ষী বা তার উর্ধ বৃক্ষের সংখ্যা হাতে গোনা কয়েকটি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হল আর সলিমুল্লাহ হল, ফুলার রোড সংলগ্ন সহ পুরো ঢাকায়, যে কয়টি বৃক্ষ এখনো আছে তার দিকে লোভী দৃষ্টি পড়ছে বার বার। ক্ষমতা আর রাজনৈতিক পেশীশক্তিতে এই অপশক্তি বার আমাদের ইতিহাস, ঐতিহ্যের সাক্ষী এই গাছগুলোকে কেটে নিজেদের পকেট ভারী করতে ব্যস্ত।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় অবস্থিত এই বৃ্ক্ষগুলো রক্ষা করে কতৃপক্ষ যেমন সারাদেশে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে পারত তার পরিবর্তনে তার নিজেরাই বৃক্ষ নিধনে নেমেছে বিভিন্ন সময়। বিভিন্ন সময় নানা কৌশলে গাছগুলো বিক্রির প্রচেষ্টা চালানো হয়েছে। কিন্তু জনগণের ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টার কারণে বার বার তাদের রুখে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এই ব্যক্তিগুলো বিপক্ষে কখনোই ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। ফলে তারা বার বার একই অপরাধ করছে। আমরা দাবী করি এই দোষীদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আমরা চাই এই রকম এক শতবর্ষী গাছ রক্ষায় বুয়েট দৃষ্টান্ত হবে সারাদেশের জন্য। গাছটিকে হত্যার জন্য নয় আলোচনা হোক গাছটির রক্ষার স্বার্থে। কি কি প্রযুক্তি আছে তোমার প্রয়োগ করো গাছটি রক্ষার স্বার্থে।

আমাদের এই শহরে অনেক কিছু হবে। শত তলা দালান, ফিউচার পার্ক, সপিং মল, লাল সবুজ আলোর ঝাপটা সবই হবে। কিন্তু একটা শতবর্ষী বৃক্ষ কি হবে?

তাই বার বারের মত শুধু বলেই হবে এখানে একটা গাছ ছিল, ঢাকা একটা সবুজ নগর ছিল একদিন। আমরা বলতে চাই। প্রাণে ঢাকা, বৃক্ষের সুশীতল ছায়ায় ঢাকা থাকবে। আসুন ঐক্যবদ্ধ হই শতবর্ষী এই বৃক্ষ রক্ষায়।

601228_719260324753548_514198436_n

সৈয়দ সাইফুল আলম শোভন

পরিবেশ কর্মী, বেটার বাংলাদেশ ট্রাস্ট।

Comments