সুন্দরবনের ক্ষতি হলেও রামপালেই হবে বিদ্যুৎকেন্দ্র

Print Friendly

ঢাকা, ২০ ফেব্রুয়ারি : সুন্দরবনের কিছু ক্ষতি হলেও রামপাল প্রকল্প থেকে সরে আসবে না সরকার। সরকারের এই অনড় অবস্থানের কথা জানালেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি বলেছেন,  এতো বেশি কয়লা আসবে তাতে প্রতিবেশ-পরিবেশে তো কিছু প্রভাব পড়বেই। কিন্তু বিদ্যুৎকেন্দ্রটি সরিয়ে নেয়ার এখনো কেনো সম্ভাবনা নেই।

গত সোমবার সন্ধ্যায় সচিবালয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ে বিশ্ব ব্যাংকের পরিবেশ ও প্রাকৃতিক সম্পদ বিষয়ক জ্যেষ্ঠ পরিচালক পলা ক্যাবালেরো নেতত্বাধীন একটি প্রতিনিধি অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে। এরপর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

মুহিত তার স্বভাবসুলভ বাংলা-ইংরেজি মিলিয়ে বলেন, রামপাল নিয়ে বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয়ের বক্তব্য হচ্ছে ‘ভালো’। এতে পরিবেশের তেমন ক্ষতি হবে না। কিন্তু এতো কয়লা আসবে, এতো নৌকা আসবে, দ্যাট উড বি সাম ইমপ্যাক্ট, অবভিয়াসলি, ফ্লোরা-ফোনাসহ (উদ্ভিদ) বিভিন্ন জলজ প্রাণি অবশ্যই আক্রান্ত হবে।

তাহলে প্রকল্পটি অন্য কোথাও সরিয়ে নেয়া যায় কি না জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘এ সম্ভাবনা বোধ হয় এখন আর নেই।’

মুহিত বলেন, ভূমিবেষ্টিত এলাকায় কয়লাভিত্তিক কেন্দ্র করা ঠিক না। এ কারণে ভবিষ্যতে কয়লাভিত্তিক প্ল্যান্ট মহেশখালী, পায়রাসহ অন্যান্য উপকূলীয় এলাকায় হবে। এজন্য খুলনা-ভোলা-পটুয়াখালীর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট দ্বীপগুলো খতিয়ে দেখা হবে।

মুহিত আরো বলেন, আমাদের বন এলাকা খুব কম। কিন্তু আমরা সুন্দরী গাছ কেটে ফেলতেছি। তার ফলে সুন্দরবন কমে যাচ্ছে। এটা আমাদের জন্য ভালো না। এটা নিয়ে নিজেদের ভাবতে হবে। জনগণ যেন বন রক্ষায় এগিয়ে আসে, সেই সচেতনতা গড়ে তুলতে হবে।

এদিকে আরেক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘জ্বালানি মন্ত্রণালয় থেকে একটা পেপার এসেছে, আমাদের একটা মিটিং আছে, সেখানে এটা নিয়ে আলোচনা হবে।’

বিশ্বব্যাংক প্রতিনিধির সঙ্গে বৈঠক প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেন, বৈঠকে পরিবেশ সংক্রান্ত দেশের চলমান বিভিন্ন প্রকল্পে আন্তর্জাতিক তহবিল প্রাপ্তি নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

Comments