বিষ প্রয়োগ করে নদীর মাছ নিধন !

Print Friendly

রাজশাহী, ১০ এপ্রিলঃ এমনিতেই মানবসৃষ্ট নানা কারনে মরতে বসেছে দেশের হাজারো নদী ও নদীতে বসবাসরত জীব বৈচিত্র্য।  এমতাবস্থায়, রাজশাহীর দুর্গাপুরে উন্মুক্ত হোজা নদীতে প্রকাশ্যে বিষ প্রয়োগ করে দেশী প্রজাতির মাছ নিধন করার অভিযোগ উঠেছে। একটি প্রভাবশালী মহল শুক্রবার সকাল থেকে নদীতে বিষ প্রয়োগ করে মাছ নিধনে মেতে উঠে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, জেলা প্রশাসক দপ্তর থেকে দুর্গাপুর উপজেলার কিসমত হোজা মৎস্যজীবি সমবায় সমিতির প্রায় ৩ কিলোমিটার আয়তনের হোজা নদীটি নামে মাত্র ১১মাস পূর্বে বাংলা ১৪২১সন থেকে ১৪২৩ সনের জন্য লীজ গ্রহণ করে। এরপর ওই সমিতির সাথে জড়িত প্রভাবশালী ব্যক্তিরা শতশত জেলেদের রোজগারের পথ বন্ধ করে দিয়ে ৩ কিলোমিটার লীজ নিয়ে পুরো নদীতে বাঁশের বেড়া দিয়ে রাখেন।

হোজা নদীটি লীজ দেওয়ার পর থেকে দুর্গাপুর উপজেলার শতশত জেলেদের আয়ের পথ বন্ধ হয়ে যায়। তারা বিভিন্ন মহলের কাছে গিয়েও কোন সুফল পায়নি।

উপজেলার সিংগা গ্রামের জেলে আবু তালেব,আব্দুস সামাদ জানান, বাপ দাদার আমল থেকে তারা ওই হোজা নদীতে মাছ শিকার করে সংসার চালিয়ে আসছিলেন। স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তিরা নদীটি নামমাত্র অর্থে লীজ নিয়ে তারা জোর করে মাছ চাষ করছে।

দুর্গাপুর সদর ব্রীজ থেকে মহিলা কলেজ ব্রীজ পর্যন্ত নিয়মবহির্ভূতভাবে বিষ প্রয়োগ করে নানা দেশীয়  প্রজাতির মাছ নিধন করে। এবিষয়ে কিসমত হোজা মৎস্যজীবি সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমানের নদীতে বিষ প্রয়োগ করে মাছ নিধনের কথা স্বীকার করে বলেন, আমাদের সমিতির নামে নদী লীজ দেয়া হোজা নদীতে বিষ প্রয়োগ করে মাছ শিকার করা হয়েছে।

এবিষয়ে দুর্গাপুর উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা কাজী আতিয়াহ তইয়েবীর মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।

সবুজপাতা ডেস্ক

Comments