রাতারগুল রক্ষায় গণ ই-মেইল

Print Friendly

সবুজপাতা ডেস্ক, ১৬ জুলাই: দেশের একমাত্র মিঠাপানির জলারবন রাতারগুল রক্ষায় সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শাবি) গণ ই-মেইল প্রেরণ কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। বুধবার সকাল ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্জুন তলায় এ কর্মসূচি পালন করা হয়।

এ কর্মসূচিতে রাতারগুলে অ4030_SUSTপরিকল্পিত কর্মকাণ্ড বন্ধ ও বিশেষজ্ঞ পরামর্শের দাবি জানানো হয়।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা), শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগঠন গ্রীণ এক্সপ্লোর সোসাইটি, সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাধিকার ও ভূমিসন্তান বাংলাদেশ- এর যৌথ উদ্যোগে এই কর্মসূচির আয়োজন করা।

জলাভূমিতে শাপলাসহ নানা জাতের ছোট গাছপালা এমনিতেই জন্মে। কিন্তু এসব গাছের সঙ্গে পানিসহিষ্ণু বড় গাছপালা জন্মে একটা বনের রূপ নিলে তবেই তাকে বলে সোয়াম্প ফরেস্ট বা জলের জঙ্গল। উপকূলীয় এলাকার বাইরে অন্যান্য জায়গার সোয়াম্প ফরেস্টগুলো সব সময় জলে প্লাবিত থাকে না। কেবল বর্ষায় এই বনের গাছগুলো আংশিক জলে ডুবে থাকে। আমাদের বাংলাদেশেও রয়েছে এমন একটি সোয়াম্প ফরেষ্ট। অার সেটি এ্রই রাতারগুল।

স্বীকৃত একমাত্র এই সোয়াম্প ফরেষ্টটি সিলেটেই অবস্থিত।
উত্তরে গোয়াইন নদী, দক্ষিণে বিশাল হাওর। মাঝখানে ‘জলার বন’ রাতারগুল। সিলেট জেলার সীমান্তবর্তী উপজেলা গোয়াইনঘাটের ফতেহপুর ইউনিয়নে এই জলার বনের অবস্থান।

সিলেট নগরী থেকে দেশের একমাত্র স্বীকৃত এ সোয়াম্প ফরেস্টের দূরত্ব প্রায় ৬ কিলোমিটার। অনিন্দ্য সুন্দর বিশাল এ বনের গাছ-গাছালির বেশিরভাগ অংশই বছরের সাত মাস থাকে পানির নিচে। শুষ্ক মৌসুমে পানি শুকিয়ে গেলে মাথা উঁচু করে দাঁড়ায় গোটা বন। শীতের শুরুতেই আনাগোনা শুরু হয় অতিথি পাখির। বনের ভেতর দিয়ে বয়ে যাওয়া লেকে চলে পাখির ‘ডুবো খেলা’।

 

বনজুড়ে চরে বেড়ায় নানা প্রজাতির বন্যপ্রাণী। রাতারগুল জলার বন ঘুরে দেখা গেছে, হাওর আর নদী বেষ্টিত অপূর্ব সুন্দর বনের দক্ষিণ পাশে সবুজের চাদরে আচ্ছাদিত জালি ও মূর্তা বেত বাগান। এর পেছনেই মাথা উঁচু করে আছে সারি সারি জারুল-হিজল-কড়চ। বনের ভেতর দিয়ে বয়ে যাওয়া লেকগুলো আলাদা সৌন্দর্য এনে দিয়েছে জলার বনটিকে।

বনবিভাগ সূত্রে জানা যায়, ১৯৭৩ সালে রাতারগুলকে বন্যপ্রাণীদের অভয়ারণ্য হিসেবে ঘোষণা করা হয়। রাতারগুল’র আয়তন প্রায় ৩৩১ একর। বিশাল এ বনে রয়েছে জারুল, করচ, কদম, বরুণ, পিটালি, হিজল, অর্জুন, জালি বেত ও মূর্তা বেতসহ জলসহিষ্ণু প্রায় ২৫ প্রজাতির উদ্ভিদ।

Comments