বুড়িগঙ্গায় গণগোসল : ২৭ শে সেপ্টেম্বর হোক বুড়িগঙ্গা বাঁচানোর প্রতিকী প্রতিবাদী দিন

Print Friendly

সফেদ টিটু, শিক্ষার্থী,  জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

ঢাকা: ফেসবুকের মাধ্যমে জানতে পারলাম সবুজ পাতা নামের একটি পরিবেশবাদী সংগঠন ২৭ শে সেপ্টেম্বর বুড়িগঙ্গায় গণ- গোসলের আয়োজন করতে যাচ্ছে । একটু ধাক্কা খেলাম । বুড়িগঙ্গায়  গণ গোসল ! কৌতূহল সৃষ্টি হল । পরিবেশবাদীদের নিয়ে আমার এমনিতেই নেতিবাচক ধারণা আছে । ভাবলাম পানিতে নামবে তো ।

1270829_596617240381623_877874535_o

বাহাদুর শাহ পার্ক থেকে র‌্যালি করে মিলব্যাক ঘাটে যাওয়ার কথা । তাই সকালে বাহাদুর শাহ পার্কে হাজির হলাম । গিয়ে দেখি সংবাদ সংস্থা রয়টার্সের ক্যামেরা উপস্থিত। চলছে ফর্ম পূরণ আর সবুজের ভলান্টিটিয়ারদের -শার্ট বিতরণ ।প্রায় শ- দুয়েক মানুষের জমায়েত । প্রথম বাংলাদেশী  এভারেষ্ট বিজয়ী মুসা ইব্রাহিম , প্রকৌশলী ও পরিবেশ আন্দোলনের সক্রিয় সদস্য ইকবাল হাবিব ও নাট্য অভিনেতা স্বাধীন খসরু উপস্থিত । আমার ধারনা পাল্টে গেল । উপস্থিত সকলের তথ্য সংগ্রহ , টি-শার্ট বিতরণ ও আয়োজক সাহেদ আলম এর স্বাগত বক্তব্য শেষে বেলা এগারটায় র‌্যালি শুরু হল । প্রায় এক কিলোমিটার রাস্তা র‌্যালি করে মিলব্যারাক ঘাটে পৌছে দেখি গোসল করার জন্য দুটি ট্রলার ভাড়া করা হয়েছে । গোসলের প্রস্তুতি শেষে ট্রলারে করে নদীর ভেতর গিয়ে সবাই এক সাথে বুড়িগঙ্গায় য ঝাপ দিলেন । সাথে সাথে প্রায় সকল  প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক  মিডিয়ার ক্যামেরায় ধরা পড়ে দুরন্ত সেই মুহুর্ত ।মুসা ইব্রাহিমের গোসল করা সবার মধ্যে উৎসাহের সৃষ্টি করে । যারা প্রথমে গোসল করতে চায়নি তারা ও নেমে পড়ে ।

গণ গোসল সম্পর্কে মুসা ইব্রাহিম বলেন , বুড়িগঙ্গায় ময়লা পানিতে গণ গোসলের আয়োজন অবশ্যই সাহসী পদক্ষেপ ।ঢাকাকে বাচাতে হলে বুড়িগঙ্গাকে  বাচাতে হবে । তাই পরিবেশ নিয়ে বড় বড় কথা না বলে কাজ করতে হবে । সেই কাজের যাত্রা শুরু হবে এই গণ গোসলের মাধ্যমে ।

ইকবাল হাবিব বলেন , এর আগে কউ এমন ব্যতিক্রমী ও কাযকরী পদক্ষেপ নেয় নি । এসি রুমে বসে সভা সেমিনার করে  কোন কাজ হয় না । সাধারণ মানুষকে পরিবেশ সম্পর্কে সচেতন করতে এই উদ্যোগ খুবই কাযকর ভূমিকা রাখবে ।

নাট্য অভিনেতা স্বাধীন খসরু তার পঠিত ’ আমাদের শহরে একটি নদী ছিল ” বইয়ে সারাংশ বলেন । তিনি বলেন এই বইতে লেখক নদীর মনোরম বর্ণনা দেন । তারপর দেখান মানুষ বিভিন্ন ভাবে নদীকে দূষিত করছে । সবশেষে লেখক স্বপ্ন দেখেন , একদল দেবদূত শহরে আসে । তার পর দেবদূত পুরো ঢাকা শহর ভেঙ্গে নতুন করে গড়েন । নদী কে বাচিয়ে তোলেন ।তিনি সেই দেবদূতের প্রতিনিধি হয়ে স্বল্প সামর্থ্য দিয়ে নদীকে বাচাতে একটু কাজের আহবান জানান ।

সবুজ পাতা সংগঠনের পক্ষে গণ গোসলের আয়োজক সাংবাদিক সাহেদ আলম , ২৭ সেপ্টেম্বর কে গণ গোসল দিবস হিসাবে ঘোষনা দেন । তিনি বলেন , আমরা বুড়িগঙ্গায় ময়লা পানি আগে নিজের গায়ে মেখে দূষণ কারীদের বলতে চাই “ বুড়িগঙ্গায়  কুচকুচে কালো নয় স্বাভাবিক নদীর ঘোলা পানি চাই ”।

উচু তলার মানুষদের বুড়িগঙ্গায়  ময়লা পানিতে গোসল করতে দেখে সাধারণ  মানুষের মধ্যে বিষ্ময় জাগে । তাদের চাহনির মাঝে কৌতূহল আর উদাসীনতা দেখা যায় । নিজের চোখকে যেন বিশ্বাস করতে পারে না । ভাবে কিছু হবে তো ।

আমার স্বপ্ন একটু অন্য রকম , এই সংগঠন কাজ চালিয়ে যাবেএবং কোন একদিন টেমস নদীর মতো বুড়িগঙ্গায় পানি স্বচ্ছ হবে । কোন একদিন এই ২৭শে সেপ্টেম্বর ঢাকা বাসির উৎসবের দিনে পরিণত হবে । হাজার হাজার মানুষ উৎসব মুখর পরিবেশে সখ করে বুড়িগঙ্গায়  গোসল করবে । সেই শুভ দিনের প্রতীক্ষায় থাকলাম।

1238947_536768096400969_2072131645_n

সফেদ টিটু, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

titumiah_2009@yahoo.com

Comments