Homeসবুজ বিতর্ক (Page 2)
Archive

সবুজপাতা ডেস্কঃ  সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি এবং উপকূলীয় অঞ্চলে ভূমিক্ষয়ের কারণে প্রশান্ত মহাসাগরীয় সলোমন দ্বীপপুঞ্জের পাঁচটি দ্বীপ অদৃশ্য হয়ে গেছে। গত শনিবার অস্ট্রেলিয়ার গবেষকদের এক গবেষণা প্রতিবেদনে তথ্য জানানো হয়েছে।এনভায়োরোমেন্টাল রিসার্চ লেটার্স নামের ওই গবেষণাপত্রে আরো বলা হয়, সলোমন দ্বীপপুঞ্জের আরো ছয়টি প্রবাল দ্বীপ মারাত্মক ভূমিক্ষয়ের

সবুজপাতা ডেস্ক ঢাকা: রামপালে কয়লাভিত্তিক তাপবিদ্যুৎকেন্দ্র হলে তা সুন্দরবনকে ধ্বংস করবে বলে দাবি করেছে ‘সুন্দরবন বাঁচাও আন্দোলন’ নামের একটি সংগঠন।রোববার এক বিবৃতিতে সংগঠনটির পক্ষ থেকে এ দাবি করা হয়।বিবৃতিতে বলা হয়, “সুন্দরবনের একেবারে সন্নিকটে রামপালে পরিবেশ বিধ্বংসী কয়লাভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের লক্ষ্যে চলতি মাসেই ভারতীয়

সবুজপাতা ডেস্কঃ  সম্প্রতি দক্ষিণ চীনের গুয়াংজি ঝুয়াং স্বায়ত্বশাসিত অঞ্চলের একটি ম‍ৎস্য পুকুরে এক বিরাট গর্ত দেখা গেছে। রাতারাতি সৃষ্ট বিশালাকারের গর্তটি মাত্র একঘণ্টার ব্যবধানে পুকুরের ২৫ টন মাছ গ্রাস করে ফেলেছে।ডিম্বাকার গর্তটির ব্যাসার্ধ চার থেকে পাঁচ মিটার। হঠাৎ সৃষ্ট গর্তের অতলে হারিয়ে গেছে পুকুরের সব

মংলা: সুন্দরবনের শ্যালা নদীতে ১২৩৫ মেট্রিক টন কয়লা বোঝাই লাইটার জাহাজ এমভি সি হর্স অন্তত ৩০ মিটার পানির নিচে তলিয়ে  গেছে।নৌযান এমভি সি-হর্সকে কখন উত্তোলন করা হবে এ বিষয়ে  লাইটারটির  মালিক পক্ষ বা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কেউ নিশ্চিত করে কিছু জানাতে পারেননি।তবে ডুবন্ত জাহাজটির অবস্থান নির্ণয়

সবুজপাতা ডেস্ক: রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের কারণে সুন্দরবন এলাকার প্রাকৃতিক পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য চরম হুমকির মুখে পড়বে৷ কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রর বিষাক্ত গ্যাস দূষিত করবে পানি, মাটি ও বায়ু৷ আর তার ফলে হারিয়ে যেতে পারে বাঘ আর ডলফিনও৷ক্যালিফোর্নিয়ায় বসবাসরত সুন্দরবন গবেষক জেসিকা লরেঞ্জ তার এক ব্লগে এই আশঙ্কা

 সবুজপাতা ডেস্ক, ৪ মার্চঃ জলবায়ু বিশেষজ্ঞরা যা বলছেন, তা ধীরে ধীরে ভীতিজনক হয়ে উঠছে৷বিজ্ঞানীদের চোখ এখন সুমেরু-কুমেরুর বরফের আস্তরণের দিকে, যা পুরোপুরি গললে সাগরের জল বাড়তে পারে দু'শো ফুট!‘ইন্টারগভর্নমেন্টাল প্যানেল অন ক্লাইমেট চেঞ্জ' বা আইপিসিসি তিন বছর আগেই অনুমান করার চেষ্টা করেছিল, বিশ্বের উষ্ণায়নের ফলে

ঢাকা, ২০ ফেব্রুয়ারি : সুন্দরবনের কিছু ক্ষতি হলেও রামপাল প্রকল্প থেকে সরে আসবে না সরকার। সরকারের এই অনড় অবস্থানের কথা জানালেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি বলেছেন,  এতো বেশি কয়লা আসবে তাতে প্রতিবেশ-পরিবেশে তো কিছু প্রভাব পড়বেই। কিন্তু বিদ্যুৎকেন্দ্রটি সরিয়ে নেয়ার এখনো কেনো সম্ভাবনা

প্যারিসে জলবায়ু সম্মেলনে ধনী ও উন্নয়নশীল দেশগুলোর মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে বড় ধরনের বিভেদ  লক্ষ করা গেছে বলে  জানা গেছে।ফরাসি পররাষ্ট্রমন্ত্রী ল্যঁহ ফাবিয়ুস বলেছেন, সম্মেলনের লক্ষ্য সফল হবার বিষয়ে তিনি এখনো আশাবাদী।কিন্তু শুক্রবারে সম্মেলন শেষ হবার আগে এ নিয়ে আরো কাজ করার কথা থাকলেও তেমন ফলপ্রসূ

/