আইলা এলাকায় দূর্যোগ সহনশীল ঘর!

কম্প্রিহেনসিভ ডিসাস্টার ম্যানেজমেন্ট প্রজেক্ট বা সিডিএমপি এবং সরকারের যৌথ সহায়তায় দর্যোগ সহনশীল মডেল গ্রাম প্রকল্প

ঢাকা, ২৫ মে;  ঘূর্ণিঝড়ের ৪ বছর  এখন ক্ষতের দাগ স্পষ্ট আইলা বিদ্ধস্থ এলাকায়।ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা, খুলনার দাকোপ উপজেলার বাইনপাড়া এলাকা। ২০০৯ সালের ২৫ মে প্রলয়ংকরী ঘূর্ণিঝড় আইলায় নদীতে বিলীন হয়ে যায় একেবারে নিঃস্ব হয়ে যায় ৮৪টি পরিবার। এর মধ্যে এলাকা ছেড়ে চলে গেছে ২৬টি পরিবার। গেল চার বছর ধরে যতটুকুই উদ্যোগ নেয়া হয়েছে,তা যে বিশাল তৃষ্নায় এক গ্লাস পানি ঢালার মত। এর-ই মধ্যে কিছু কিছু উদ্যোগ আলোচনায় এসেছে, নজড় কেড়েছে উন্নয়ন/সমাজকর্মীদের। ইউএনডিপি  এর কম্প্রিহেনসিভ ডিসাস্টার ম্যানেজমেন্ট প্রজেক্ট বা সিডিএমপি এবং সরকারের যৌথ সহায়তায় দর্যোগ সহনশীল মডেল গ্রাম প্রকল্প তার একটি।

 

১৫ ফুট দৈর্ঘ্য ও ১০ ফুট প্রস্থের ঘরগুলো ঘণ্টায় ২৬০ কিলোমিটার গতিবেগের ঝড় সহনশীল

১৫ ফুট দৈর্ঘ্য ও ১০ ফুট প্রস্থের ঘরগুলো ঘণ্টায় ২৬০ কিলোমিটার গতিবেগের ঝড় সহনশীল

সম্প্রতি  দাকোপের বাইপাড়ায় সরকারী সাড়ে ৭ একর খাস জমিতে পুনর্বাসন করা হয়েছে ৫৮টি পরিবারকে। প্রতিটি পরিবার পেয়েছে ৬ শতক জমি ও একটি করে ঘর। প্রতিটি ঘরের সাথেই আছে রেইন ওয়াটার হার্ভেস্টিং সিস্টেম । প্রতিটি ঘরের সাথে আছে সৌর বিদ্যুৎ। নির্মাণ করা হয়েছে কমিউনিটি সেন্টার, পানির জন্য পিএসএফ ও যাতায়াতের জন্য নৌকা। খনন করা হয়েছে ৩টি পুকুর।

সম্প্রতি এই মডেল গ্রাম ঘুরে দেখেন জাতিসংঘের কর্মকর্তারা। তাদরে দাবী, এই গ্রামের ১৫ ফুট দৈর্ঘ্য ও ১০ ফুট প্রস্থের ঘরগুলো ঘণ্টায় ২৬০ কিলোমিটার গতিবেগের ঝড় সহনশীল। ক্ষতিগ্রস্থ আরেকটি এলাকা, সাতক্ষীরার গাবুরা ইউনিয়ন।সেখানে এলকায় জরিপ চালিয়ে, বেসরকারী সংস্থা ব্রতী তথ্য দিয়ে বলছে, ২০০৯ সালে ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানার পর সেখানে হতদরিদ্রের সংখ্যা ৪৩ শতাংশ বেড়েছে। এলাকায় ৭৪ শতাংশ মানুষ উচ্চমাত্রায় লবণাক্ত ও দূষিত পানি পান করে। এতে ৯৫ শতাংশ মানুষ নিয়মিতভাবে অসুস্থ থাকছে।

 ফলাফলে বলা হয়েছে, গাবুরা ইউনিয়নে ৩৯ হাজার মানুষের বসবাস। আইলার আঘাতে মানুষের উপার্জন মাধ্যমগুলো ধ্বংস হওয়ায় গত ৪ বছরে এ ইউনিয়নে হতদরিদ্রের সংখ্যা ৪৩ শতাংশ বেড়েছে এবং মধ্যবিত্ত শ্রেণী ৪৩ শতাংশ কমেছে। খাদ্য সংকটে বাসিন্দারা

পাঁচ বছর আগে ঘূর্ণিঝড় আইলার আঘাতে বাস্তুহারা বেশিরভাগ লোকজনই তাদের নিজ বাড়িতে ফিরেছে। ২০০৯ সালের ২৫ মে ঘূর্ণিঝড় আইলাখুলনাসহ দেশের উপকূলীয় এলাকায় প্রচণ্ড আঘাত হানে। ঝড় ও সামুদ্রিক জলোচ্ছ্বাসে ভেসে যায় কয়েক হাজার বাড়িঘর। মারা যায় কমপক্ষে ১৯০ জন।

 

মামুন রেজা, সংবাদ কর্মী

খুলনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top