প্রয়োজনে রোহিঙ্গাদের ১০হাজার একর বনভূমি দেওয়া হবে: বনমন্ত্রী

image-107566-1508934974.jpg

সবুজপাতা ডেস্কঃ পরিবেশ ও বনমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু বলেছেন, ‘বনভূমির আংশিক ক্ষতি হলেও মানবিক কারণে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তাই রোহিঙ্গাদের সাময়িক আশ্রয়ের জন্য সরকার সবকিছুই করবে। তিন হাজার একর বনভূমিতে জায়গা না হলে প্রয়োজনে ১০ হাজার একর বনভূমি রোহিঙ্গাদের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হবে।’

বুধবার দুপুরে কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার রোহিঙ্গা অধ্যুষিত এলাকা কুতুপালং শরণার্থী ক্যাম্প পরিদর্শনকালে  তিনি এসব কথা বলেন।
রোহিঙ্গাদের নির্মিত ঝুপড়ি ও নির্বিচারে পাহাড় কাটার দৃশ্যটি অবলোকন করে বনকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, বস্তির আনাচে-কানাচে গাছপালা রোপন করে পরিবেশ রক্ষা করতে হবে। তা না হলে, বনভূমি ও বন সম্পদের আরো ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। যেহেতু রোহিঙ্গারা এখনো আসছে।
দ্বি-পাক্ষিক আলোচনা ও কূটনৈতিক পর্যায়ে সংকট সমাধান না হওয়া পর্যন্ত রোহিঙ্গা আসতে থাকবে এমন মন্তব্য করে মন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গাদের জন্য যতটুকু বনভূমি দরকার দেওয়া হবে। তবে তা সংরক্ষণ করার দায়িত্ব বন সংশ্লিষ্টদের।
এর আগে মন্ত্রী কুতুপালং ডি-ব্লকে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্প ঘুরে দেখেন। এসময় মন্ত্রীর সাথে ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আলহাজ জাকের হোসেন সুলতান, সম্পাদক মণ্ডলীর সদস্য সালাউদ্দিন মাহামুদ, চট্টগ্রাম বন সংরক্ষক জগলুল হোসেন, কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগীয় কর্মকর্তা মো. মুর্শেদ, কক্সবাজার দক্ষিণ বন বিভাগীয় কর্মকর্তা মো. আলী কবির, কোস্টাল ফরেস্ট ডিভিশন কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির, উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নিকারুজ্জামান, অফিসার ইনচার্জ মো. আবুল খায়ের প্রমুখ।
এরপর মন্ত্রী উখিয়া ও টেকনাফের বিভিন্ন রোহিঙ্গা ক্যাম্প ও ক্ষতিগ্রস্ত বনাঞ্চল পরিদর্শন করেন।
scroll to top