টানা বৃষ্টিতে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় জলাবদ্ধতা, দুর্ভোগ চরমে

22687556_806557649529119_3625677136930414169_n.jpg

সবুজপাতা ডেস্কঃ  বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপের কারণে টানা বর্ষণে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে। ফলে ভোগান্তিতে পড়েছেন রাজধানিবাসী। বৃহস্পতিবার রাত থেকে শুরু হওয়া ঝিরি ঝিরি বৃষ্টি সময় বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে রূপ নেয় ভারী বর্ষণে।

শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত আবহাওয়ার পূর্বাভাস অনুযায়ী গত ২৪ ঘণ্টায় রাজধানীতে ১৫৮ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। টানা বৃষ্টিতে জলাবদ্ধ হয়ে পড়েছে রাজধানীর বিভিন্ন রাজপথসহ অলিগলি। বৃষ্টির কারণে অফিসগামী লোকজন ও স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা পড়েছে বিপাকে। সবচেয়ে বড় সমস্যায় পড়েছে খেটে খাওয়া মানুষগুলো। গত দুই দিন ধরে ঘরের বাইরে যেতে পারছেন না। তাই তারা কাজও পাচ্ছেনা।

শনিবার সকালে বৃষ্টিতে অনেকে ঘর থেকে বের হতে পারেনি। রাস্তা-ঘাট তলিয়ে গেছে পানিতে। শহরের অলি-গলিতে কোথাও হাঁটু পানি আবার কোথাও দেখা যাচ্ছে কোমর পানি। এ অবস্থায় যান-বাহনও চলার অবস্থায় নেই সিটি করপোরেশনের রাস্তাগুলোতে। আর কোনো যাত্রী যদি কোনো রিকশাও পাচ্ছেন সেখানে ভাড়া দিতে হচ্ছে দ্বিগুণ।

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ও খোঁজখবরে সর্বত্রই ভোগান্তির চিত্র দেখা গেছে। মহানগরীর নতুনবাজার থেকে জোয়ার সাহারা, সাতরাস্তা থেকে কারওয়ানবাজার মোড়, সায়েন্সল্যাব থেকে নিউমার্কেট-নীলক্ষেত, গুলশান-১ ও গুলশান-২ মার্কেট এলাকার সড়ক, গুলশান পিংক সিটি মার্কেট সড়ক, গুলিস্তান, পুরান ঢাকার বিপণিবিতান ও মিরপুর এলাকার বিপণিবিতানে যাতায়াতের সড়কগুলোতে দেখা গেছে জলাবদ্ধতা, সেই সঙ্গে তীব্র যানজট। এসব সড়কের সামনে রিকশা, অটোরিকশা, মাইক্রোবাস, বাস, মোটরবাইকে যাত্রীদের ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে থাকতে দেখা গেছে। অপ্রস্তুত অনেকে বৃষ্টিতে ভিজে একাকার হয়েছেন। আবাসিক এলাকা ধানমণ্ডি, লালমাটিয়া, মোহাম্মদপুর, আদাবরের বিপণিবিতানগুলোর সামনের সড়কেও তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়।

এ ছাড়া যাত্রাবাড়ী, শান্তিনগর, পুরান ঢাকার আলাউদ্দিন রোড, নাজিমউদ্দিন রোড, শহীদনগর এলাকার অলিগলি, মালিবাগ, মধুবাজার, খিলক্ষেত এলাকাসহ মহানগরীর বিভিন্ন এলাকার সড়কে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। ফলে ওই এলাকার বাসিন্দাদের সীমাহীন ভোগান্তির শিকার হতে হয়েছে।

মিরপুর মধ্য পাইকপাড়ার বাসিন্দা শারমিন রহমান বলেন, সোমবারের বৃষ্টিতে মধ্য পাইকপাড়া, মিরপুর-১ নম্বর এলাকার সড়কগুলো পানিতে তলিয়ে গেছে। বৃষ্টির জন্য দ্বিগুণ-তিনগুণ ভাড়া বেশি চেয়েছে সব রিকশাওয়ালা। ৩৫ টাকার ভাড়া ৭০ টাকা দিয়ে মিরপর-১ নম্বর বাসস্টেশনে আসতে হয়েছে।

বনানী ১১ নম্বর সড়কের বাসিন্দা শাহ আলম বলেন, ব্যক্তিগত কাজে সকালে তেজগাঁও, মহাখালী ও গুলশান এলাকায় চলাচল করতে হয়েছে। সকালের বৃষ্টি আর যানজটের সঙ্গে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হওয়ায় ভোগান্তিতে নাকাল হয়েছি। মহাখালী, বনানী ও গুলশানের বিভিন্ন সড়কে জলাবদ্ধতা দেখে অবাক হয়েছি। কেননা এসব এলাকার ড্রেনেজলাইনের উন্নয়নে গত দুই বছরে বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় হয়েছে।

এদিকে শনিবার সন্ধ্যা  ৬ টায় আবহাওয়া অধিদফতরের দেয়া পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় এবং রংপুর, রাজশাহী, ঢাকা, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ী  দম্কা অথবা ঝড়ো হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারী ধরনের বৃষ্টি অথবা বজধসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সাথে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারী ধরনের ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হতে পারে।

এছাড়া  গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গ এবং তৎসংলগ্ন বাংলাদেশের দক্ষিণপশ্চিমাঞ্চল ও উড়িষ্যা এলাকায় অবস্থানরত স্থল নিম্ন চাপটি উত্তর-উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে শনিবার বিকাল ০৩:০০ টায়  বাংলাদেশের টাঙ্গাইল এবং তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছিল (২৪.১ ডিগ্রী উত্তর অক্ষাংশ এবং ৯০.০ ডিগ্রী পূর্ব দধাঘিমাংশ)। এটি আরও উত্তর/উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে ক্রমাম্বয়ে দুর্বল হয়ে যেতে পারে। এর প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগর এলাকায়
বায়ু চাপের তারতমে ̈র আধিক ̈ বিরাজ করছে এবং গভীর সঞ্চালণশীল মেঘমালা তৈরী অব্যাহত রয়েছে।

চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দর সমূহকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

scroll to top