বিশ্ব টয়লেট দিবস পালিত

5dy4jm78-e1416311087109.jpg

সবুজপাতা ডেস্ক, ১৯ নভেম্বর: ১৯ নভেম্বর বুধবার সারা বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশে উদযাপন হয়েছে ‘বিশ্ব টয়লেট দিবস’। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ২০০১ সাল থেকে ‘বিশ্ব টয়লেট দিবস’ পালিত হয়ে এলেও ২০১৩ সাল থেকে জাতিসংঘ আনুষ্ঠানিকভাবে দিবসটি পালনের ঘোষণা দেয়। এ বছর বিশ্ব টয়লেট দিবসের প্রতিপাদ্য হচ্ছে, ‘সমতা ও মর্যাদা’।

দেশে বর্তমানে ৯৭ শতাংশ লোক যেকোনো ধরনের ল্যাট্রিন ব্যবহার করছে। বাকি ৩ শতাংশ পরিবার খোলা জায়গায় মলমূত্র ত্যাগ করছে। স্যানিটেশন ব্যবহার শতভাগে উন্নীত করা কঠিন হবে। তবে পিছিয়ে পড়া পার্বত্য, চর, হাওর, উপকূল, নদীভাঙা ও চা-বাগান এলাকাগুলোতে স্যানিটেশন ব্যবহারে আমাদেরকে আরো কাজ করতে হবে। পাশাপাশি টেকসই প্রযুক্তির স্যানিটেশন ব্যবস্থা গড়ার দিকে এখন আমাদেরকে জোর দিতে হবে।

বিশ্বে এখনো ২৫০ কোটি মানুষ উন্নত স্যানিটেশন থেকে বঞ্চিত। বাংলাদেশে ৫৭ ভাগ মানুষ উন্নত স্যানিটেশন ব্যবহার করছে। স্যানিটেশন ব্যবস্থায় এমডিজি লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য আমরা সরকারের ডিপিএইচই, পলিসি সাপোর্ট ইউনিট ও এনজিওগুলো যৌথভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

স্থানীয় চাহিদাভিত্তিক পানি, স্যানিটেশ ও হাইজিন বাজেট প্রণয়নে সরকারকে উদ্যোগ নিতে হবে। এ খাতে বাজেট বরাদ্দের অপ্রতুলতা রয়েছে। পাশাপাশি বরাদ্দকৃত বাজেট সঠিক সময়ে মাঠপর্যায়ে পৌঁছানো, বাস্তবায়ন ও জনগণের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে।

‘বিশ্ব টয়লেট দিবস’ উপলক্ষ্যে সরকারি-বেসরকারি যৌথ উদ্যোগে রাজধানীর কাকরাইলস্থ জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতর ভবনের অডিটোরিয়ামে এ দিন ‘উন্নত স্যানিটেশ: বর্জ্য ব্যবস্থাপনার চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক স্যামিনার অনুষ্ঠিত হয়। সেমিনারে বুয়েটের প্রফেসর ড. মো. মজিবুর রহমান ও বেসরকারি সংস্থা ডরপ এর গবেষক মোহাম্মদ যোবায়ের হাসান মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।

10429330_685658458208726_3816432256091992524_n

এদিকে, পর্যাপ্ত পাবলিক টয়লেট স্থাপন, টয়লেটের ইজারা বাতিল, বিনামূল্যে সার্ভিস ও স্বাস্থ্যকর পরিবেশ এবং শহরের মার্কেটগুলোতে টয়লেট ব্যবহার উম্মুক্ত করে দেয়ার দাবিতে বদনা নিয়ে এক অবস্থান কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করেপারেশনের নগর ভবনের সামনে পরিবেশবাদী সংগঠন মাস্তুল ফাউন্ডেশন, আঁচল ট্রাস্ট, নিরাপদ ফাউন্ডেশন, পরিবর্তন চাই, অরুণোদয়ের তরুণ দল, সিএফডি, প্রত্যাশা মাদক বিরোধী সংগঠনসহ বিভিন্ন গ্রুপের কর্মীদের উদ্যোগে এ অবস্থান কর্মসূচি পালিত হয়।

অবস্থান কর্মসূচিতে বক্তারা বলেন, ‘দেড় কোটি রাজধানীবাসীর জন্য সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে ৬৯টি পাবলিক টয়লেট দেয়া হয়েছে। সে হিসেবে দুই লক্ষাধিক মানুষের জন্য একটি টয়লেট এটা কল্পনাও করা যায় না। এর মধ্যেও আবার ৫টি মোটামুটি ব্যবহার উপযোগী। ২টি ভেঙে ফেলা হয়েছে। ১০টি সম্পূর্ণরূপে বন্ধ। ১০টিতে কোনো সেবা নেই। তাছাড়া ৭৫ ভাগ শৌচাগারে মেয়েদের জন্য আলাদা কোনো ব্যবস্থা নেই। ৫০ ভাগ টয়লেটে নিয়মিত পানি থাকে না। ৭০ ভাগে প্রয়োজনীয় আলো-বাতাসের ব্যবস্থা নেই।’

scroll to top