সৌরশক্তি; সেচ যন্ত্র চলছে পঞ্চগড়ে

solar-pumping.jpg

 ঢাকা, ১৫ মে; বিদ্যুৎবিহীন প্রত্যন্ত অন্চলে কৃষি কাজে সেচ দিতে মূলত শ্রমের উপর-ই নির্ভরশীল বাংলাদেশের কৃষকেরা। এ পদ্ধতিতে, স্বল্প এলাকায় রুজির প্রয়োজন যতটুক-ঠিক ততটুকুই সেচের ব্যাবস্থা করে আসছেন কৃষকেরা। তবে এবার মনে হয় বিদ্যুৎ পৌছায়নি এমন প্রত্যন্ত অন্চলে সৌরশক্তি ব্যবহার করে সেচ চালানোর পথে আগাচ্ছে দেশ। পঞ্চগড়ে এমন চিত্র দেখা গেছে।

মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের আর্থিক সহায়তায় সৌর বিদ্যুত্ প্রযুক্তি ব্যবহার করে সেচ পাম্প চালাচ্ছেন পঞ্চগড় সদর উপজেলার হাড়িভাসা এবং বোদা উপজেলার শিকারপুর, জগন্নাথপুর, বেংহারী ও তেপুকুরীয়া গ্রামের কৃষকরা।

water-irrigation-groundwater-carbon_based_ghg_blogspot_com_news_featured

বৈদ্যুতিক সেচ পাম্পের মাধ্যমে পার্শ্ববর্তী করতোয়া নদী থেকে এবং গভীর নলকূপের মাধ্যমে ভূ-গর্ভ থেকে পানি তুলে জমিতে সেচ দেয়া হচ্ছে। এতে আলাদা কোন জ্বালানি প্রয়োজন না হওয়ায় উত্পাদন খরচ অনেকাংশে কমে গেছে। পঞ্চগড় সদর ও বোদা উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে ১০টি সমিতির মাধ্যমে ১৬টি সেচ এলাকায় ৫শ’ জন কৃষক ২ হাজার বিঘা জমিতে এবার বোরো চাষ করেছেন কৃষকরা। সৌর বিদ্যুত্ চালিত সেচ যন্ত্রের সাহায্যে জমিতে সেচ দিয়ে কম খরচে ভাল ফলন পেয়ে অত্যন্ত খুশি তারা।

মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক সৌর বিদ্যুত্ চালিত সেচ পাম্প স্থাপনের পাশাপাশি প্রকল্প এলাকার কৃষকদের মাঝে মত্স্য চাষ, গবাদিপশু পালন ও কৃষি কাজের জন্য প্রায় ১২ কোটি টাকা ঋণ প্রদান করেছে বলে মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের কো-অর্ডিনেটর জয়নুল আবেদীন লাবু জানান। কৃষকদের সাফল্যের কারণে এ বছর সমিতিভুক্ত আরো ৬টি সৌর সেচ পাম্প স্থাপন করা হবে বলে ব্যাংকের ইরিগেশন প্রজেক্ট ম্যানেজার জানান।

প্রত্যন্ত অঞ্চলে বিদ্যুত্ সংযোগের ব্যবস্থা না থাকায় অথবা সংযোগ থাকলেও নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুত্ সরবরাহের নিশ্চয়তা না থাকার কারণে কৃষি ক্ষেত্রে সম্ভাবনাময় অনেক এলাকায় বৈদ্যুতিক সেচ পাম্প ব্যবহার করা যাচ্ছে না। এক্ষেত্রে ব্যতিক্রমী এ উদ্যোগের প্রসংসা করছেন স্থানীয়রা। কৃষকরা সেচ পাম্প চালিয়ে কৃষিতে যথেষ্ট সাফল্য লাভ করছে।

বেংহারী গ্রামের কৃষক লুত্ফর রহমান জানান, কৃষি নির্ভর এলাকায় সেচ সুবিধা খুব সহজলভ্য ছিল না। ফলে পর্যাপ্ত সেচের অভাবে অনেক জমি অনাবাদী থাকতো।

জানা গেছে, একটি সৌর বিদ্যুত্ চালিত পাম্প স্থাপনে ৩২ লাখ টাকা ব্যয় হয়। পঞ্চগড় কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপ-পরিচালক নজরুল ইসলাম বলেন, সমবায় ভিত্তিতে অধিকতর সহজ শর্তে দীর্ঘ মেয়াদে ঋণ প্রদানের ব্যবস্থা করা গেলে পঞ্চগড়ে বৃদ্ধি পাবে সৌর বিদ্যুত্ চালিত সেচের আওতা। নিশ্চিত হবে খাদ্য নিরাপত্তা, লাভবান হবেন কৃষক।

 সবুজপাতা নিউজ, ন্যাশনাল ডেস্ক।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top