Homeসবুজ জীবন২০১৬ সালে বিশ্বের ৩৫ ভাগ মানুষের হাতে থাকবে স্মার্টফোন

২০১৬ সালে বিশ্বের ৩৫ ভাগ মানুষের হাতে থাকবে স্মার্টফোন

প্রযুক্তি প্রতিবেদক: প্রযুক্তি এক সময় মানুষের হাতের মুঠোয় চলে আসবে এটা ছিল বিংশ শতাব্দীর খুব জনপ্রিয় আশাবাদ। এখন দ্বাদবিংশ শতাব্দীতে এসে সেটা একদম বাস্তায়নের শিখরে। হাতের মুঠোয় পুরো দুনিয়া দেখার মাধ্যম মোবাইল ফোনসেট যন্ত্রটির মধ্য দিয়ে। নাম স্মার্টফোন।

ইন্টারনেট এর মাধ্যমে এই স্মার্টফোন যেন সবকিছুকে দারুণ নাগালের মধ্যে এনে দিয়েছে। সাম্প্রতিক এক গবেষনা বলছে,আগামী  বছর শেষে বৈশ্বিক  জনসংখ্যার  ৩৫  শতাংশ মানুষের  হাতে  পৌছে  যাবে স্মার্টফোন।  আর ২০১৫ সালের  শেষে দুনিয়াজুড়ে স্মার্টফোন  ব্যবহারকারীর সংখ্যা হবে ৩শ’ ৩০ কোটি। মোবাইল প্রস্তুতকারী প্রতিষ্টান এরিকসনের এর বাজার গবেষনা থেকে এমন পরিসংখ্যান বেরিয়েছে।

স্মার্টফোন হলো বিশেষ ধরনের মোবাইল ফোন যা মোবাইল কম্পিউটিং প্লাটফর্মের ওপর প্রতিষ্ঠিত। বর্তমানে সর্বাধিক প্রচলিত স্মার্টফোনসমূহ হলো অ্যাপলের আইওএস, গুগলের অ্যান্ড্রয়েড, মাইক্রোসফটের উইন্ডোজ, নকিয়ার সিম্বিয়ান এবং রিসার্চ ইন মোশনের ব্ল্যাকবেরি

এরিকসনের  প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১৩ সালের শেষেই স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১৯০ কোটি ছুঁয়েছে। আর ২০১৫ সালের শেষে এটি ৩৩০ কোটিতে গিয়ে ঠেকবে।

smartphone-and-tablets

অপরদিকে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক বাজার গবেষণা সংস্থা ‘স্ট্র্যাটেজি অ্যানালিস্ট’ এর গবেষণায় দেখা গেছে, আগামী বছর নাগাদ   সেদেশের প্রতি ১০ জনের ৩ জনের বেশি মানুষ স্মার্টফোনের সুবিধা ভোগ করবেন। ২০১৫ সাল নাগাদ এই সংখ্যা হবে আড়াই কোটির বেশি। আর এই মুহূর্তে এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের বাসিন্দারা সবচেয়ে বেশি সংখ্যক স্মার্টফোন ব্যবহার করেন । অবশ্য উচ্চ প্রযুক্তির মোবাইল ব্যবহারকারীর মধ্যে এগিয়ে আছে ইউরোপ এবং লাতিন আমেরিকা।

 বর্তমানে  স্মার্টফোনের  বাজার  দখল করে রেখেছে গুগলের অপারেটিং সিস্টেম অ্যান্ড্রয়েড। অ্যান্ড্রয়েড একটি ওপেন সোর্স মোবাইল অপারেটিং সিস্টেম যা বিভিন্ন ওপেন সোর্স প্রজেক্টের ওপর ভিত্তি করে তৈরি। একজন অ্যান্ড্রয়েড ডেভেলপার এই প্ল্যাটফর্মের ওপর তৈরি ফোনের সোর্সকোডে প্রবেশাধিকার রাখে। সহজ কথায় একজন ডেভেলপার চাইলে ইন্টারফেস নিয়ন্ত্রণ করে এবং বিভিন্ন ছোটখাটো কাজ করে প্ল্যাটফর্মের ভালোমন্দ নির্ধারণে সাহায্য করতে পারে। গুগলের অ্যান্ড্রয়েড ওপেন সোর্স হিসেবে থাকায় বড় বড় কোম্পানিসমূহ (ওপেন হ্যান্ডসেট অ্যালায়েন্স) তাদের হার্ডওয়্যার ডিভাইসে অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করতে শুরু করেছে। ফলে গুগলের অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে ও জনপ্রিয়তা বাড়ছে।

 সবুজ টেক ডেস্ক

No comments

Sorry, the comment form is closed at this time.